জনপ্রিয় সংবাদ

x



ঢাকা টাইমস সম্পাদককে প্রাণনাশের হুমকি ?

হুমকিদাতারা গ্রেপ্তার না হলে কঠোর আন্দোলনের হুঁশিয়ারি সাংবাদিক নেতাদের

মঙ্গলবার, ২৬ নভেম্বর ২০১৯ | ৩:৪৪ এএম | 47 বার

হুমকিদাতারা গ্রেপ্তার না হলে কঠোর আন্দোলনের হুঁশিয়ারি সাংবাদিক নেতাদের
মানববন্ধনে সাংবাদিক নেতারা হুঁশিয়ারি করে বলেন হুমকিদাতারা ৭২ ঘন্টার মধ‌্যে গ্রেপ্তার না হলে কঠোর আন্দোলনে যাবেন সাংবাদিক সমাজের নেতারা

দৈনিক ঢাকা টাইমস, ঢাকাটাইমস২৪ ডটকম এবং সাপ্তাহিক এই সময়ের সম্পাদক আরিফুর রহমান দোলনের কাছে টাকা চেয়ে প্রাণনাশের হুমকিদাতাদের অবিলম্বে গ্রেপ্তার করা না হলে কঠোর কর্মসূচির ঘোষণা দেবে সাংবাদিক সমাজ ।

তারা বলেন, হুমকিদাতাদের ফোন নম্বরের সূত্র ধরে দ্রুত আইনের আওতায় আনতে হবে। সাংবাদিককে প্রাণনাশের হুমকি দিয়ে তার কলম স্তব্ধিত করা যাবে না বলেও হুঁশিয়ারি দেন তারা।মঙ্গলবার সকালে জাতীয় প্রেসক্লাবের সামনে এক মানববন্ধন ও প্রতিবাদ সমাবেশে সাংবাদিক নেতারা এসব কথা বলেন । আরিফুর রহমান দোলনকে দেওয়া প্রাণনাশের হুমকির প্রতিবাদে ফরিদপুর জার্নালিস্ট ফাউন্ডেশন (এফজেএফ) এই কর্মসূচির আয়োজন করে ।



এতে আয়োজক সংগঠনের নেতারা ছাড়াও বাংলাদেশ ফেডারেল সাংবাদিক ইউনিয়ন (বিএফইউজে), ঢাকা সাংবাদিক ইউনিয়ন (ডিইউজে), ঢাকা রিপোর্টার্স ইউনিটির (ডিআরইউ) সাবেক এবং বর্তমান নেতারা বক্তৃতা দেন । সঞ্চালনা করেন এফজেএফের সাধারণ সম্পাদক অমরেশ রায়।

বিএফইউজের মহাসচিব   বিশিষ্ট সাংবাদিক শাবান মাহমুদ বলেন, ‘ঢাকা টাইমস সম্পাদক আরিফুর রহমান দোলনের কাছে চাঁদা দাবি করা করে, তাকে জীবননাশের হুমকি দেয়া হয়েছে।

জীবনের নিরাপত্তার জন‌্য থানায় এ নিয়ে জিডি করা হয়েছে। আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর উদ্দেশে বলতে চাই, যারা হুমকি দিয়েছে টেলিফোন রেকর্ড যাচাই করে চিহ্নিত করে গ্রেপ্তার করা হোক। যদি তার কিছু হয়, তাকে নিরাপত্তাহীন রেখে আইনশৃঙ্খলা বাহিনী দায়িত্বজ্ঞানহীন আচারণ করে তাহলে সারাদেশে সাংবাদিকরা জাগরণ সৃষ্টি করবে।’

সাংবাদিকদের হুমকি দিয়ে কলম স্তব্ধ করা যাবে না উল্লেখ করে বিশিষ্ট এই সাংবাদিক নেতা বলেন, ‘বর্তমান প্রধানমন্ত্রী অত্যন্ত সাংবাদিকবান্ধব। তাঁর শাসনামলে যদি কেউ সাংবাদিকদের ওপর আক্রমণের চেষ্টা করে, তবে সারাদেশে প্রতিবাদের ঝড় উঠবে। কোনো সাংবাদিকদের উপর হামলা চালানোর চেষ্টা করা হলে মিছিলে মিছিলে সারাদেশ প্রকম্পিত করা হবে।’

ডিইউজের সাধারণ সম্পাদক সোহেল হায়দার চৌধুরী বলেন, ‘আমাদের বিস্মিত হতে হয়, শুদ্ধি অভিযানের মধ্যে একজন শীর্ষ সন্ত্রাসী আরিফুর রহমানের মত একজন ভালো সাংবাদিক, রাজনীতিবীদ ও সমাজসেবককে কোন সাহসে হুমকি দেয়। ঢাকা টাইমস সম্পাদককে হুমকি দেওয়ার পর আমরা আর বসে থাকতে পারিনা। আমরা চাই আগামী তিনদিনের মধ্যে এই ঘটনা যারা ঘটিয়েছে তাদের বের করে ব্যবস্থা নেওয়া হোক।

ডিএমপি কমিশনার, আইজিপি ও মাননীয় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীর উদ্দেশে বলছি, এই ঘটনার দ্রুত বিচার করুন। তা না হলে সাংবাদিক সমাজ বড় ধরনের আন্দোলনে যাবে।’

আয়োজক সংগঠন এফজেএফের সভাপতি লায়েকুজ্জামান বলেন, ‘যারা সরকারের গোয়েন্দা বিভাগে আছেন তাদের উদ্দেশ্যে বলতে চাই, আরিফুর রহমান কোনো ফেলনা মানুষ নয়। তিনি বঙ্গবন্ধুর আদর্শের মানুষ। স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীসহ আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীদের উদ্দেশে বলছি, সাংবাদিককে কারা প্রাণনাশের হুমকি দেয় তাদের খুঁজে বের করুন। বিষয়টিকে গুরুত্বের সঙ্গে দেখুন। এটিকে আর সামনে বাড়তে দিবেন না। যারা এসব জঘন্য কাজ করছে, তাদের দ্রুত গ্রেপ্তার করে শাস্তি নিশ্চিত করুন।’

বিএফউইজের কার্যনির্বাহী কমিটির সদস্য শেখ মানুনুর রশিদ বলেন, ‘আমাদের অত্যন্ত পরিচিত মুখ আরিফুর রহমান, তিনি অত্যন্ত মেধাবী, সদালাপী, নিরাহংকার, বিনয়ী মানুষ। আজ তার মতো একজন প্রতিশ্রুতিশীল সাংবাদিককে প্রাণনাশের হুমকি দেওয়া হয়েছে। বর্তমান সরকার সাংবাদিবান্ধব সরকার। এই সময়ে একজন পত্রিকার সম্পাদককে হুমকি দেওয়া অত্যন্ত দুঃখজনক। আমরা এর তীব্র নিন্দা জানাই।’

তিনি বলেন, ‘দ্রুত সময়ের মধ্যে হুমকিদাতাদের আইনের আওতায় না আনা হলে আমরা কিন্তু বসে থাকবো না। আইনশৃঙ্খলা বাহিনী যদি দায়িত্বহীন আচরণ করে তাহলে সাংবাদিক সমাজ কিন্তু বসে থাকবে না। সারা দেশে প্রতিবাদের ঝড় উঠবে। যেটা সরকার ও আইশৃঙ্খলা বাহিনীর জন্য শুভ হবে না।

এ ব্যপারে আমরা স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খান কামালে দৃষ্টি আকর্ষণ করছি।’ শেখ মামুম বলেন, ‘হুমকিদাতাদের চেয়ে আমাদের ক্ষমতা অনেক বেশি। কারণ আমরা ঐক্যবদ্ধ।’

এফজেএফ সহ-সভাপতি আছাদুজ্জামান বলেন, ‘দ্রুত সময়ের মধ্যে হুমকিদাতাদের খুঁজে বের করতে হবে। এ ঘটনায় সাংবাদিক সমাজ উদ্বিগ্ন, দ্রুত সময়ের মধ্যে আইনশৃঙ্খলা রক্ষা বাহিনীর কার্যকর পদক্ষেপ চাই।’

সাংবাদিক নেতা শাহনেওয়াজ দুলাল বলেন, ‘প্রশাসনকে বলছি, এই সন্ত্রাসীদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা না নেওয়া হলে আমাদের আন্দোলন বৃহত্তর আকারে রুপ নিবে। তাই এর আগেই ব্যবস্থা নিন। অন্যথায় আমাদের যা করণীয় সেটা আমরা করব।’

ঢাকাস্থ ঝালকাঠি সাংবাদিক যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক মানিক লাল ঘোষ বলেন, ‘আরিফুর রহমানের ভালো কাজের প্রতিবন্ধকতা সৃষ্টি করতে এই সন্ত্রাসী এমন জঘন্য কাজ করেছে। আমরা আরিফুর রহমানের পাশে আছি।’

ডিআরইউর সাবেক সাংগঠনিক সম্পাদক নুরুল ইসলাম হাসিব বলেন, ‘আরিফুর রহমানের জীবননাশের হুমকি দেওয়ার ঘটনায় তীব্র নিন্দা জানাচ্ছি। যারা এসব করছে তাদের কঠোর শাস্তি নিশ্চিত করতে সংশ্লিষ্টদের দৃষ্টি আকর্ষণ করছি।’

জ্যেষ্ঠ সাংবাদিক শরিফুল ইসলাম দুলু বলেন, ‘আরিফুর রহমানকে হুমকির বিষয়টি উদ্বেগের। বিষয়টি খুব গুরত্বের সঙ্গে নেওয়ার জন্য আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীকে অনুরোধ করছি।

যারা এই অনৈতিক কর্মকান্ড করেছে অবিলম্বে তাদের শাস্তির আওতায় আনা হোক, গ্রেপ্তার করা হোক।

এফজেএফের সাবেক সাধারণ সম্পাদক আলী আজম বলেন, ‘এই ঘটনায় জড়িত সন্ত্রাসীরা এত সাহস কী করে পায়, তা খতিয়ে দেখতে হবে।’

এফজেএফের সদস্য জ্যৈষ্ঠ সাংবাদিক অশোকেশ রায় বলেন, ‘ঢাকা টাইমস সম্পাদককে যে বা যারা হুমকি দিয়েছে তাদের দ্রুত খুঁজে বের করতে হবে। এ ব্যাপারে মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর দৃষ্টি আকর্ষণ করছি।’

ডিআরইউর সাবেক নেতা সাংবাদিক শেখ জামাল বলেন, ‘এখনো কেন হুমকিদাতা সন্ত্রাসীদের গ্রেপ্তার করা যাচ্ছে না, তা বিস্ময়কর। আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীকে এ ব্যাপারে আরও দ্রুত পদক্ষেপ নিতে হবে।’

মানববন্ধন ও প্রতিবাদ সভায় দৈনিক ঢাকা টাইমস, ঢাকা টাইমস২৪ ডটকম এবং সাপ্তাহিক এই সময়ের সাংবাদিক, কর্মীরাসহ দেশের বিভিন্ন গণমাধ্যমের সাংবাদিকরা উপস্থিত ছিলেন।

প্রসঙ্গত, গত ২৩ নভেম্বর শীর্ষ সন্ত্রাসী শাহাদাত পরিচয়ে আরিফুর রহমান দোলনকে ফোন করে টাকা চাওয়া হয়। টাকা না দিলে প্রাণনাশের হুমকি দেওয়া হয়। এ ঘটনায় রমনা থানায় একটি সাধারণ ডায়েরি করা হয়েছিল। যার নম্বর- ১৪৪৫। এর দুদিন পর ২৫ নভেম্বর দুপুরে শীর্ষ সন্ত্রাসী সুব্রত বাইন পরিচয়ে ফের টাকা দাবি ও প্রাণনাশের হুমকি দেওয়া হয়। এই ঘটনায় রমনা থানায় আরেকটি সাধারণ ডায়েরি করা হয়েছে। যার নম্বর-১৫৮৯।

এরপরও পুলিশ ও প্রশাসন থেকে এ বিষয়ে কার্যকর কোনো পদক্ষেপ নেওয়া হয়নি। আগামী ৭২ ঘণ্টার মধ্যে হুমকিদাতা সন্ত্রাসীদেও চিহ্নিত করে গ্রেপ্তার ও বিচারের আওতায় আনা না হলে সাংবাদিক সমাজ কঠোর ও বৃহত্ত্বর কর্মসূচি দিতে বাধ্য হবেন।

 

250

Development by: webnewsdesign.com