শুক্রবার ৭ই অক্টোবর, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ | ২২শে আশ্বিন, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

হাসপাতালে চিকিৎসক-কর্মচারীকে লাঞ্ছনার অভিযোগ

নিজস্ব প্রতিবেদক   |   সোমবার, ০৮ আগস্ট ২০২২ | প্রিন্ট

হাসপাতালে চিকিৎসক-কর্মচারীকে লাঞ্ছনার অভিযোগ

নীলফামারী জেনারেল হাসপাতালের জরুরি বিভাগে কর্মরত চিকিৎসক-কর্মচারীকে লাঞ্ছনার অভিযোগে মানববন্ধন অনুষ্ঠিত হয়েছে। বাংলাদেশ মেডিক্যাল অ্যাসোসিয়েশন (বিএমএ) জেলা শাখা ও জেলা স্বাস্থ্য বিভাগের তৃতীয়-চতুর্থ শ্রেণি কর্মচারী সমন্বয় পরিষদ যৌথভাবে এই কর্মসূচির আয়োজন কর। সোমবার (৮ আগস্ট) বেলা ১১টার দিকে জেলা শহরের চৌরঙ্গী মোড়ে এই মানববন্ধন অনুষ্ঠিত হয়।

ঘণ্টাব্যাপী মানববন্ধনে চিকিৎসক, নার্স, নীলফামারী মেডিক্যাল কলেজের শিক্ষার্থী এবং নার্সিং ইনস্টিটিউটের শিক্ষার্থীরা অংশ নেন। পরে দ্রুত আসামি গ্রেফতারের দাবিতে জেলা প্রশাসক ও পুলিশ সুপারকে স্মারকলিপি দেওয়া হয়।

বক্তারা জানান, গত ১ আগস্ট দুপুর আড়াইটার দিকে জেলা শহরের টুপির মোড় এলাকার আবু হানিফা (৫৭) নামে এক রোগীকে বুকে ব্যথা অবস্থায় হাসপাতালের জরুরি বিভাগে নিয়ে আসেন স্বজনরা। সে সময় সম্ভাব্য সব চিকিৎসা শেষে তাকে রংপুর মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে নেওয়ার পরামর্শ দেন জরুরি বিভাগে কর্তব্যরত চিকিৎসক শাথিল সাইমুন চৌধুরী। পরে অ্যাম্বুলেন্সে ওঠার সময় ওই রোগী মারা যান।

মানববন্ধনে অভিযোগ করা হয়, মৃতের স্বজনরা লাশ নিয়ে যাওয়ার সময় নীলফামারী পৌরসভার ছয় নম্বর ওয়ার্ডের কাউন্সিলর মাহফুজার রহমান শাহ্ চিৎকার করতে করতে ১৫ থেকে ২০ জনকে নিয়ে জরুরি বিভাগে প্রবেশ করে অ্যাম্বুলেন্স ড্রাইভার আনোয়ার হোসেনকে চড়-থাপ্পড় ও ধাক্কা মেরে ফেলে দেন। এ সময় সেখানে কর্তব্যরত চিকিৎসক, নার্স, ওয়ার্ডবয়ের ওপর চড়াও হয়ে অকথ্য ভাষায় গালিগালাজসহ তাদের শারীরিকভাবে হেনস্তা এবং সরকারি কাজে বাধা দেন। এ ঘটনায় থানায় মামলা দায়েরের এক সপ্তাহ হলেও গ্রেফতার হয়নি প্রধান আসামি।’

হাসপাতালের আবাসিক চিকিৎসা কর্মকর্তা আবদুর রহিম জানান, এ ঘটনায় ২ আগস্ট সদর থানায় মামলা দায়ের করেছেন হাসপাতালের তত্ত্বাবধায়ক ডা. মো. আবু আল হাজ্জাজ।

এদিকে, পৌর কাউন্সিলর মাহফুজার রহমান শাহ্ সব অভিযোগ অস্বীকার করে বলেন,‘ওই রোগী আমার ওয়ার্ডের। রোগীকে হাসপাতালে নেওয়ার ৪০ থেকে ৪৫ মিনিট পার হলেও চিকিৎসক তাকে দেখেননি বলে স্বজনরা আমাকে ফোন করে জানান। এরই মধ্যে রোগীর মৃত্যু হয়। ঘটনাস্থলে পৌঁছে স্বজনদের মধ্যে উত্তেজনা দেখতে পাই। একজন জনপ্রতিনিধি হিসেবে আমি লোকজনকে শান্ত করি। আমার মাধ্যমে চিকিৎসক লাঞ্ছনার কোনও ঘটনা ঘটেনি। হাসপাতালের সিসি ক্যামেরার ফুটেজ দেখলে বিষয়টি জানা যাবে। দায়ের করা মামলাটির নিরপেক্ষ তদন্ত দাবি করছি।’

মানববন্ধন শেষে সেখানে অনুষ্ঠিত সমাবেশে জেলা বিএমএ’র সহ-সভাপতি ডা. মজিবুল হাসান চৌধুরী শাহিনের সভাপতিত্বে বক্তব্য রাখেন– সাধারণ সম্পাদক ডা. দিলীপ কুমার রায়, সাংগঠনিক সম্পাদক ডা. হাসান হাবিবুর রহমান, জেনারেল হাসপাতালের গাইনি বিভাগের কনসালটেন্ট ডা. ওবায়দা নাজনীন মুক্তা, আবাসিক চিকিৎসা কর্মকর্তা আবদুর রহিম, চিকিৎসা কর্মকর্তা আরিফ হাসনাত, মশিউর রহমান ডিগ্রি কলেজের সাবেক অধ্যক্ষ সারওয়ার মানিক প্রমুখ।

সদর থানার ওসি আবদুর রউফ জানান, মামলাটির তদন্ত চলছে। তদন্ত সাপেক্ষে প্রয়োজনীয় (আইনগত) ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

Facebook Comments Box
advertisement

Posted ৯:৪৯ অপরাহ্ণ | সোমবার, ০৮ আগস্ট ২০২২

dhakanewsexpress.com |

advertisement
advertisement
advertisement

আর্কাইভ

শনি রবি সোম মঙ্গল বুধ বৃহ শুক্র
১০১১১২১৩১৪
১৫১৬১৭১৮১৯২০২১
২২২৩২৪২৫২৬২৭২৮
২৯৩০৩১  
মোঃ মাসুদ রানা হানিফ সম্পাদক