শুক্রবার ২রা ডিসেম্বর, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ | ১৭ই অগ্রহায়ণ, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

শিরোনাম >>
শিরোনাম >>

শ্রম অধিকার রক্ষায় বাংলাদেশের ভূমিকা প্রশংসনীয়, আইএলওতে ভারত

নিজস্ব প্রতিবেদক   |   শুক্রবার, ১১ নভেম্বর ২০২২ | প্রিন্ট

শ্রম অধিকার রক্ষায় বাংলাদেশের ভূমিকা প্রশংসনীয়, আইএলওতে ভারত

বাংলাদেশ-ভারত

-ফাইল ছবি

জেনেভায় আন্তর্জাতিক শ্রম সংস্থা-আইএলও’র গভর্নিং বডির ৩৪৬তম অধিবেশনে শ্রম খাত উন্নয়নে বাংলাদেশের উদ্যোগের প্রশংসা করেছে ভারত। অধিবেশনে ভারতীয় প্রতিনিধি এ প্রশংসা করেন।

জেনেভার অধিবেশনে ভারতীয় প্রতিনিধি বাংলাদেশকে সমর্থন করে বলেন, ঢাকা ও জেনেভার আইএলও অফিসের সঙ্গে পরামর্শ করে রোডম্যাপ বাস্তবায়নে বাংলাদেশ সরকার যে প্রচেষ্টা চালিয়েছে তার প্রশংসা করি।

উন্নয়নমূলক পরিকল্পনার একটি অবিচ্ছেদ্য অংশ হিসেবে দেশের সামগ্রিক শ্রম পরিস্থিতির উন্নতির দিকে বাংলাদেশ সরকারের গৃহীত পদক্ষেপগুলোর প্রশংসা এবং সমর্থন করে ভারত।

ভারতীয় প্রতিনিধি জানান, বাংলাদেশে ট্রেড ইউনিয়নের অনলাইন এবং অফলাইন নিবন্ধনে সুবিধার জন্য উল্লেখযোগ্য সংখ্যক ইউনিয়ন বৃদ্ধিতে অবদান রেখেছে। সংশ্লিষ্ট শ্রম আইন সংশোধনের কাজ ভালোভাবে এগিয়ে চলেছে।

ভারত প্রশংসার সঙ্গে জানাচ্ছে যে, বাংলাদেশ সরকার রফতানি প্রক্রিয়াকরণ অঞ্চল ( ইপিজেড) ও এর বাইরের এলাকায় জন্য সার্বক্ষণিক হেল্পলাইনগুলো বজায় রাখার পাশাপাশি ব্যাকলগ মামলাগুলোর সমাধানের জন্য অতিরিক্ত শ্রম আদালত স্থাপন করেছে এবং বিচারক ও শ্রম পরিদর্শক নিয়োগ করেছে।

শ্রম আইন সংস্কারের অগ্রগতি ভালোভাবে এগিয়ে যাচ্ছে জেনে ভারত খুশি।

বাংলাদেশ শ্রম বিধি এবং রপ্তানি প্রক্রিয়াকরণ অঞ্চল বিধি উভয়ই গ্রহণ করেছে এবং এই বিষয়ে গেজেট বিজ্ঞপ্তি জারি করেছে।

ভারত বিশ্বাস করে যে, শ্রম খাতে বহুমুখী সংস্কার আনতে বাংলাদেশ সরকারের প্রচেষ্টাকে আন্তর্জাতিক সম্প্রদায় এবং আইএলও-এর সমর্থন ও উৎসাহিত করা উচিত।

আমরা বিশ্বাস করি, ২৬ অনুচ্ছেদের উল্লেখিত রোডম্যাপ বাস্তবায়নে বাংলাদেশ সরকার যে প্রতিশ্রুতি প্রদর্শন করেছে, সেটা বিশেষ প্রশংসা ও বিবেচনার যোগ্যতা রাখে। ভারত বাংলাদেশ সরকারকে তার প্রচেষ্টায় সাফল্য কামনা করে।

এর আগে আইএলও ওই অধিবেশনে উপস্থিত বাংলাদেশের আইনমন্ত্রী আনিসুল হক শ্রম খাতে বাংলাদেশের বিরুদ্ধে চলমান অভিযোগ প্রত্যাহারের আহ্বান জানান। তিনি অধিবেশনে শ্রমজীবী মানুষের ন্যায্য অধিকার প্রতিষ্ঠা ও জীবনমানের উৎকর্ষ সাধনে বাংলাদেশ সরকারের গৃহীত বিভিন্ন পদক্ষেপের কথা উল্লেখ করেন।

এছাড়া করোনাকালে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার দূরদর্শী নেতৃত্বে বাংলাদেশ মানুষের জীবন ও জীবিকা রক্ষায় তুলনামূলকভাবে সফল হয়েছে বলেও উল্লেখ করেন। মন্ত্রী জানান, ‘আইন সংস্কারের লক্ষ্যে ইতোমধ্যে বাংলাদেশ লেবার রুলস সংশোধন করা হয়েছে এবং নতুন ইপিজেড রুলস প্রণয়ন করা হয়েছে। ’ এতে করে বিরাজমান সীমাবদ্ধতা কাটিয়ে শ্রমজীবী মানুষের অধিকার রক্ষার পথ সুগম হবে বলে তিনি দৃঢ় আশাবাদ ব্যক্ত করেন।

বাংলাদেশ শ্রম আইন সংশোধনের প্রক্রিয়া শুরু হয়েছে উল্লেখ করে ইপিজেডের জন্য পরে পৃথক শ্রম আইন প্রণয়ন করা হবে বলেও আনিসুল হক অধিবেশনকে অবহিত করেন। তিনি বলেন, ‘ইতোমধ্যে ট্রেড ইউনিয়ন নিবন্ধনের প্রক্রিয়া পুরোপুরি অনলাইনভিত্তিক করা হয়েছে। এর ফলে জবাবদিহিতা ও স্বচ্ছতা নিশ্চিত করা সহজতর হবে। সরকারের গৃহীত সহজীকরণ উদ্যোগের ফলে গত ৯ বছরে ট্রেড ইউনিয়ন নিবন্ধন ৯ গুণ বৃদ্ধি পেয়েছে। ’

আইনমন্ত্রী তার বক্তব্যে কারখানা পরিদর্শন কার্যক্রম জোরদার করার ক্ষেত্রে সরকারের গৃহীত নানামুখী পদক্ষেপের কথা তুলে ধরেন। তিনি বলেন, ‘ইতোমধ্যে ইপিজেডগুলোতে কারখানা পরিদর্শনের কার্যক্রম শুরু করা হয়েছে, যা এক্ষেত্রে একটি গুরুত্বপূর্ণ মাইলফলক’।

শিশুশ্রম প্রতিরোধে তিন বছরব্যাপী একটি পাইলট প্রকল্প গ্রহণ করা হয়েছে বলে জানিয়েছেন আইনমন্ত্রী। তিনি জানান, ঝুঁকিপূর্ণ কাজ থেকে সরিয়ে নেওয়া শিশুদের সরকার কর্মমুখী শিক্ষার পাশাপাশি বৃত্তি প্রদান করছে। সম্প্রতি বাংলাদেশ কর্তৃক আন্তর্জাতিক শ্রম সংস্থার ন্যূনতম বয়স কনভেনশন ও জবরদস্তি শ্রম নিষিদ্ধকরণ প্রটোকল অনুসমর্থনের মাধ্যমে শ্রমজীবী মানুষের অধিকার প্রতিষ্ঠায় সরকারের দৃঢ় অঙ্গীকার ফুটে উঠেছে বলেও উল্লেখ করেন আইনমন্ত্রী আনিসুল হক।

Facebook Comments Box
advertisement

Posted ১০:৩৭ পূর্বাহ্ণ | শুক্রবার, ১১ নভেম্বর ২০২২

dhakanewsexpress.com |

advertisement
advertisement
advertisement

এ বিভাগের আরও খবর

আর্কাইভ

শনি রবি সোম মঙ্গল বুধ বৃহ শুক্র
 
১০১১১২১৩১৪১৫১৬
১৭১৮১৯২০২১২২২৩
২৪২৫২৬২৭২৮২৯৩০
৩১  
মোঃ মাসুদ রানা হানিফ সম্পাদক