জনপ্রিয় সংবাদ

x

র‌্যাফেল ড্র’র(লটারী)টিকিট বিক্রি বন্ধ করে দিলেন উপজেলা নির্বাহী অফিসার

শনিবার, ০৯ ফেব্রুয়ারি ২০১৯ | ১২:৩৮ পূর্বাহ্ণ | 158 বার

র‌্যাফেল ড্র’র(লটারী)টিকিট বিক্রি বন্ধ করে দিলেন উপজেলা নির্বাহী অফিসার
র‌্যাফেল ড্র’র(লটারী)টিকিট বিক্রি বন্ধ করে দিলেন উপজেলা নির্বাহী অফিসার

ঠাকুরগাঁওয়ের পীরগঞ্জে অবৈধ র‌্যাফেল ড্র’র (লটারী)  টিকিট বিক্রি বন্ধ করে দিলেন উপজেলা নির্বাহী অফিসার এ ডব্লিউ এম রায়হান শাহ।

বিকাল থেকে সন্ধ্যা পর্যন্ত পুলিশ সাথে নিয়ে শহরের বিভিন্ন এলাকায় অভিযান চালিয়ে লটারীর টিকিট বিক্রি কার্যক্রম বন্ধ করে দেন তিনি।

আজ পীরগঞ্জ উপজেলায় কোন র‌্যাফেল ড্র টিকিট বিক্রি হচ্ছে না। তবে একটি মহল বিভিন্ন দপ্তর ম্যানেজ করে পুনরায় র‌্যাফেল ড্র/লটারীর টিকিট বিক্রি করার চেষ্টা করছে বলে গোপন সুত্রে জানা গেছে।

প্রত্যক্ষদর্শীরা জানান, মুক্তা র‌্যাফেল ড্র নামে একটি কোম্পানীর ব্যানারে বিকালে শহরের বিভিন্ন পয়েন্টে ইজি বাইকে করে মাইক বাজিয়ে ঐ লটারীর টিকিট বিক্রি করা হয়। বিষয়টি উপজেলা নির্বাহী অফিসারকে জানায় স্থানীয় কতিপয় সচেতন ব্যাক্তি। খবর পেয়ে উপজেলা নির্বাহী অফিসার পুলিশকে সাথে নিয়ে শহরে অভিযান চালায়।

এ সময় শহরের পূর্ব চৌরাস্তা, কলেজ বাজার, পশ্চিম চৌরাস্তা, বটতলা, আমতলী ইজি বাইক ষ্ট্যান্ড সহ বিভিন্ন স্থানে ঐ লটারীর টিকিট বিক্রি করার সময় কয়েক জনকে হাতে নাতে ধরে ফেলেন এবং টিকিট বিক্রি কার্যক্রম বন্ধ করে দেন। ইউএনও এবং পুলিশ দেখে অনেকে পালিয়ে যায়।

এ বিষয়ে উপজেলা নির্বাহী অফিসার এ ডব্লিউ এম রায়হান শাহ বলেন, অবৈভাবে লটারীর টিকিট বিক্রি করা হচ্ছিল। তা বন্ধ করে দেওয়া হয়েছে।
তবে পীরগঞ্জ উপজেলায় র‌্যাফেল ড্র’র টিকিট বিক্রি বন্ধ হলেও বালিয়াডাঙ্গী, হরিপুর ও রাণীশংকৈল উপজেলায় বির্বিঘ্নে বিক্রি হচ্ছে র‌্যাফেল ড্র এর টিকিট।

এই তিন উপজেলায় প্রশাসনের কোন কর্মকর্তাই এদিকে নজর দিচ্ছেন না। উল্লেখ্য, রানীশংকৈল উপজেলার নেকমরদ ওরস মেলায় মুক্তা র‌্যাফেল ড্র নামে একটি কোম্পানী কয়েক দিন ধরে প্রতিদিন অবৈধভাবে লটারী খেলা পরিচালনা করছেন। ঐ কোম্পানীর লোকজন স্থানীয় কিছু কমিশন এজেন্টের মাধ্যমে গত কয়েক দিন ধরে পীরগঞ্জ পৌর শহরের বিভিন্ন পয়েন্টে পসরা সাজিয়ে টিকিট বিক্রি সহ গ্রাম গঞ্জে শতাধিক ইজিবাইকে করে মাইক বাজিয়ে অবৈধ লটারীর টিকিট বিক্রি করে আসছিল।

পুরস্কারের লোভ দেখিয়ে উপজেলার হাজার হাজার সাধারণ মানুষে কাছ থেকে ২০ টাকা মুল্যের লটারীর টিকিট বিক্রি করে লাখ লাখ টাকা হাতিয়ে নিচ্ছিল তারা।

Development by: webnewsdesign.com