সর্বশেষ সংবাদ

x



আমেরিকা প্রবাসী আলাউদ্দিন-লিমা দম্পতির স্মরণে

রাঙ্গামাটিতে বাংলাদেশের প্রথম লাভ লক পয়েন্ট

বৃহস্পতিবার, ০৮ অক্টোবর ২০২০ | ১:০৮ পূর্বাহ্ণ | 14 বার

রাঙ্গামাটিতে বাংলাদেশের প্রথম লাভ লক পয়েন্ট
চারিদিকে নদী-নালা, সবুজ গাছপালা আর পাহাড়-পর্বতে ঘেরা আমাদের এই দেশ বাংলাদেশ । প্রকৃতির অপার সৌন্দর্য উপভোগ করতে চাইলে ছুটে যেতে হবে একটি জায়গায় সেটি রাঙ্গামাটি । ২০১৪ সালের ১৯ মার্চ আমেরিকা প্রবাসী আলাউদ্দিন পাটোয়ারী (৩০) এবং তার নববধু আইরিন সুলতানা লিমা (২৫) রাঙ্গামাটি ভ্রমণে এসেছিলেন। প্রকৃতির সাথে নিজেদের আনন্দটুকু ভাগ করে নিতে একটু দুপুরে তারা রাঙ্গামাটিতে ইঞ্জিন চালিত বোট ভাড়া নিয়ে কাপ্তাই লেকে নৌবিহারে যান। সেদিন আকাশ জুড়ে ছিল ঘন নীল রঙ আর সাদা মেঘের ছড়াছড়ি। কোথাও ছিল না মেঘের চিহ্ন । এমন দিনে বৃষ্টি বা ঝড় তুফান হবার কথা কেউ চিন্তাও করেনি। বোটটি বিভিন্ন এলাকা ঘুরে পলওয়েল পার্ক সংলগ্ন বিশাল হ্রদে ইঞ্জিনের বিশাল শব্দে ধীরে ধীরে চলছিল । সারা দিন প্রখর রৌদ্র তাপে অনেক গরম অনুভূত হলেও তখন লেকে ঝিরমির বাতাস বইছিল,শরীরে শীতল অনূভবটা বেশ ভালই লাগছিল এই দম্পত্তির, সময়টাও বেশ উপভোগ করছিলেন আলাউদ্দিন-লিমা দম্পত্তি । বোট থেকে কাছে ও দূরে অনেক পাহাড় দেখা যাচ্ছিল। ঝাঁকে ঝাঁকে পাখির বিচরণও ছিল মুগ্ধ হবার মত। লেকের মধ্যে ডুব দিয়ে পানকৌড়ির মুগ্ধ হবার দৃশ্যও মন কাড়ে তাদের । প্রকৃতির এই অপার সৌন্দর্য আলাউদ্দিন-লিমা উপভোগ করেছিলেন । একে অপরের হাত ধরে কি যেন বলেছিলেন কিন্তু ইঞ্জিনের কান ঝালাপালা করা শব্দে কিছুই শোনা যাচ্ছিলনা । কথা শোনা না গেলেও হাসিতো দেখা যাচ্ছিল । এক অপরের গায়ে পড়ে তারা হাসাহাসি করছিলেন । এই অবস্থায় কখন যে আকাশে কালো মেঘ দানা বেঁধে উঠেছিল তা কেউ ঠাহর করেননি। এমনকি মাঝিও না। হঠাৎ ঝড় উঠলো। সাথে দমকা হাওয়া। কয়েক মিনিটের ঝড় আর দমকা হাওয়ায় সব লন্ডভন্ড হয়ে গেল। আলাউদ্দিন-লিমা দম্পত্তির নৌকা উল্টে গেল। ঝড় থামার পর ইঞ্জিন বোট পাওয়া গেলেও কোথাও আলাউদ্দিন লিমাকে পাওয়া গেল গেলোনা । জেলা প্রশাসক ও পুলিশ সুপারের নির্দেশে কাপ্তাই লেকে তাদের সন্ধানের অভিযান শুরু হল । ফায়ার সার্ভিস ও নৌ বাহিনীর ডুবুরি দল টানা তিন দিন পানিতে চিরুনি অভিযান চালিয়েও আলাউদ্দিন-লিমা দম্পত্তির সন্ধান পায়নি । তিন দিন পর ২২ মার্চ রাঙ্গামাটি জেলা পুলিশ পরিচালিত ‘পলওয়েল পার্ক’ এর সামনে নিখোঁজ দম্পত্তির লাশ ভেসে উঠে। কিন্তু যে অবস্থায় তাদের লাশ পাওয়া গেল সেই দৃশ্যটি ছিল আরও মর্মান্তিক। আলাউদ্দিন-লিমা একে অপরকে জড়িয়ে ধরে ছিলেন। ঝড় উঠার আগে তারা একে অপরকে যেভাবে ধরে ছিলেন মৃত্যুর পরও তারা ছিলেন আলিঙ্গনবদ্ধ। এই দৃশ্য সবাইকে কাঁদায়। রাঙ্গামাটি ভ্রমণের পরই আবার তারা একসাথে আমেরিকা যাবে বলে দিন ঠিক করেছিল। কিন্তু আমেরিকা চলে যেতে না পারলেও পরপারে চলে যায়। আলাউদ্দিন-লিমা একে অপরকে অত্যন্ত ভালোবাসতেন। আলিঙ্গনাবদ্ধ মৃত্যুতেই তারা ভালোবাসার নিদর্শন রেখে যান। সেই ভালোবাসাকে স্বীকৃতি দিতে যেখানে আলাউদ্দিন-লিমা দম্পত্তির লাশ খুজে পাওয়া যায় সেই স্থান সংলগ্ন পলওয়েল পার্কে লাভ পয়েন্ট নির্মাণের উদ্যোগ নেওয়া হয়। লাল রঙের লোহার রড দিয়ে শক্ত করে নির্মিত হয় লাভ পয়েন্ট। লাভ পয়েন্টের সামনে দাড়ালেই দেখা যাবে কাপ্তাই লেকের স্বচ্ছ পানি। এই পানিতেই ডুবে প্রাণ হারান আলাউদ্দিন-লিমা। গত ২৯ নভেম্বর ২০১৮ খ্রিস্টাব্দে বৃহস্পতিবার আনুষ্ঠানিকভাবে লাভ পয়েন্টে উদ্ধেধন করেন পার্বত্য চট্টগ্রাম উন্নয়ন বোর্ডের চেয়ারম্যান নব বিক্রম কিশোর ত্রিপুরা। লাভ পয়েন্ট উদ্ধোধনের পর নব বিক্রম কিশোর ত্রিপুরা ও তার সহধর্মিনী আনামিকা ত্রিপুরা লাভ পয়েন্টে তালা লাগিয়ে চাবি কাপ্তাই লেকের পানিতে ছুঁড়ে ফেলে ‘লাভ পয়েন্ট’ এর ‘লাভ লক’ কার্যক্রমের সূচনা করেন । লাভ পয়েন্টে তালা লাগিয়ে চাবি কাপ্তাই লেকে পানিতে ছুড়ে ফেলার মানে হলো হলো ‘আমি আমার প্রিয়তম অথবা প্রিয়তমাকে আজীবনের জন্য নিজের সাথে বন্ধি করে রাখলাম। অথৈ পানিতে যেহেতু কোনদিন চাবিটি খুঁজে পাওয়া যাবে না, এর মানে লাভ লকের কোনদিন তালাও খোলা হবেনা’। নব বিক্রম কিশোর ত্রিপুরা বলেন, এই লাভ পয়েন্টে যে কেউ আসতে পারবেন এবং ইচ্ছে করলে লাভ পয়েন্টে তালা লাগিয়ে চাবি পানিতে ছুড়ে ফেলে ভালোবাসার বন্ধন অটুট রাখতে পারবেন। এই লাভ পয়েন্টে এসে নতুন প্রজন্ম যাতে ভালোবাসার বন্ধন সম্পর্কে ইতিবাচক ধারণা পায়, প্রিয় মানুষকে ভালোবাসার বন্ধনে আবদ্ধ রাখার পাশাপাশি দেশ ও জাতিকে ভালোবাসতে শেখে সেই উদ্দেশ্যকে সামনে রেখেই লাভ পয়েন্ট নির্মাণ করা হয়। পলওয়েল পার্কে রয়েছে ভালোবাসার অমর জুটি আলাউদ্দিন-লিমা দম্পত্তির স্মরণে দেশের একমাত্র লাভ-লক পয়েন্ট। যেখানে এসে আপনিও আপনার ভালোবাসাকে বন্দি করতে পারেন মজবুত তালা-চাবির বন্ধনে। আপনার প্রিয় মানুষটির সাথে আপনার ভালোবাসাকে অমর করে রাখার প্রত্যাশায় লাভ-লক পয়েন্টে তালা বন্ধ করে চাবি ফেলে দিতে পারেন কাপ্তাই লেকের অতল গভীরে। লাভ পয়েন্টে রয়েছে আকর্ষণীয় পিকনিক স্পট, সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান করার সম্পূর্ণ সুবিধা যেমন-মঞ্চ, আলোকসজ্জা ও উন্নতমানের সাউন্ড সিস্টেম। আপনি যে কোন প্রকার পিকনিক, সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান ও আনন্দ আয়োজনের জন্য সাচ্ছন্দে বেছে নিতে পারেন লেকের অপরুপ ভিউ সমৃদ্ধ লাভ পয়েন্টকে
sheikh rasel

চারিদিকে নদী-নালা, সবুজ গাছপালা আর পাহাড়-পর্বতে ঘেরা আমাদের এই দেশ বাংলাদেশ । প্রকৃতির অপার সৌন্দর্য উপভোগ করতে চাইলে ছুটে যেতে হবে একটি জায়গায় সেটি রাঙ্গামাটি ।

২০১৪ সালের ১৯ মার্চ আমেরিকা প্রবাসী আলাউদ্দিন পাটোয়ারী (৩০) এবং তার নববধু আইরিন সুলতানা লিমা (২৫) রাঙ্গামাটি ভ্রমণে এসেছিলেন।



প্রকৃতির সাথে নিজেদের আনন্দটুকু ভাগ করে নিতে একটু দুপুরে তারা রাঙ্গামাটিতে ইঞ্জিন চালিত বোট ভাড়া নিয়ে কাপ্তাই লেকে নৌবিহারে যান। সেদিন আকাশ জুড়ে ছিল ঘন নীল রঙ আর সাদা মেঘের ছড়াছড়ি। কোথাও ছিল না মেঘের চিহ্ন । এমন দিনে বৃষ্টি বা ঝড় তুফান হবার কথা কেউ চিন্তাও করেনি। বোটটি বিভিন্ন এলাকা ঘুরে পলওয়েল পার্ক সংলগ্ন বিশাল হ্রদে ইঞ্জিনের বিশাল শব্দে ধীরে ধীরে চলছিল ।

সারা দিন প্রখর রৌদ্র তাপে অনেক গরম অনুভূত হলেও তখন লেকে ঝিরমির বাতাস বইছিল,শরীরে শীতল অনূভবটা বেশ ভালই লাগছিল এই দম্পত্তির, সময়টাও বেশ উপভোগ করছিলেন আলাউদ্দিন-লিমা দম্পত্তি ।

বোট থেকে কাছে ও দূরে অনেক পাহাড় দেখা যাচ্ছিল। ঝাঁকে ঝাঁকে পাখির বিচরণও ছিল মুগ্ধ হবার মত। লেকের মধ্যে ডুব দিয়ে পানকৌড়ির মুগ্ধ হবার দৃশ্যও মন কাড়ে তাদের । প্রকৃতির এই অপার সৌন্দর্য আলাউদ্দিন-লিমা উপভোগ করেছিলেন । একে অপরের হাত ধরে কি যেন বলেছিলেন কিন্তু ইঞ্জিনের কান ঝালাপালা করা শব্দে কিছুই শোনা যাচ্ছিলনা । কথা শোনা না গেলেও হাসিতো দেখা যাচ্ছিল । এক অপরের গায়ে পড়ে তারা হাসাহাসি করছিলেন ।

এই অবস্থায় কখন যে আকাশে কালো মেঘ দানা বেঁধে উঠেছিল তা কেউ ঠাহর করেননি। এমনকি মাঝিও না। হঠাৎ ঝড় উঠলো। সাথে দমকা হাওয়া। কয়েক মিনিটের ঝড় আর দমকা হাওয়ায় সব লন্ডভন্ড হয়ে গেল।

আলাউদ্দিন-লিমা দম্পত্তির নৌকা উল্টে গেল। ঝড় থামার পর ইঞ্জিন বোট পাওয়া গেলেও কোথাও আলাউদ্দিন লিমাকে পাওয়া গেল গেলোনা । জেলা প্রশাসক ও পুলিশ সুপারের নির্দেশে কাপ্তাই লেকে তাদের সন্ধানের অভিযান শুরু হল । ফায়ার সার্ভিস ও নৌ বাহিনীর ডুবুরি দল টানা তিন দিন পানিতে চিরুনি অভিযান চালিয়েও আলাউদ্দিন-লিমা দম্পত্তির সন্ধান পায়নি ।

তিন দিন পর ২২ মার্চ রাঙ্গামাটি জেলা পুলিশ পরিচালিত ‘পলওয়েল পার্ক’ এর সামনে নিখোঁজ দম্পত্তির লাশ ভেসে উঠে। কিন্তু যে অবস্থায় তাদের লাশ পাওয়া গেল সেই দৃশ্যটি ছিল আরও মর্মান্তিক। আলাউদ্দিন-লিমা একে অপরকে জড়িয়ে ধরে ছিলেন। ঝড় উঠার আগে তারা একে অপরকে যেভাবে ধরে ছিলেন মৃত্যুর পরও তারা ছিলেন আলিঙ্গনবদ্ধ। এই দৃশ্য সবাইকে কাঁদায়। রাঙ্গামাটি ভ্রমণের পরই আবার তারা একসাথে আমেরিকা যাবে বলে দিন ঠিক করেছিল। কিন্তু আমেরিকা চলে যেতে না পারলেও পরপারে চলে যায়।

আলাউদ্দিন-লিমা একে অপরকে অত্যন্ত ভালোবাসতেন। আলিঙ্গনাবদ্ধ মৃত্যুতেই তারা ভালোবাসার নিদর্শন রেখে যান। সেই ভালোবাসাকে স্বীকৃতি দিতে যেখানে আলাউদ্দিন-লিমা দম্পত্তির লাশ খুজে পাওয়া যায় সেই স্থান সংলগ্ন পলওয়েল পার্কে লাভ পয়েন্ট নির্মাণের উদ্যোগ নেওয়া হয়। লাল রঙের লোহার রড দিয়ে শক্ত করে নির্মিত হয় লাভ পয়েন্ট। লাভ পয়েন্টের সামনে দাড়ালেই দেখা যাবে কাপ্তাই লেকের স্বচ্ছ পানি। এই পানিতেই ডুবে প্রাণ হারান আলাউদ্দিন-লিমা।

গত ২৯ নভেম্বর ২০১৮ খ্রিস্টাব্দে বৃহস্পতিবার আনুষ্ঠানিকভাবে লাভ পয়েন্টে উদ্ধেধন করেন পার্বত্য চট্টগ্রাম উন্নয়ন বোর্ডের চেয়ারম্যান নব বিক্রম কিশোর ত্রিপুরা। লাভ পয়েন্ট উদ্ধোধনের পর নব বিক্রম কিশোর ত্রিপুরা ও তার সহধর্মিনী আনামিকা ত্রিপুরা লাভ পয়েন্টে তালা লাগিয়ে চাবি কাপ্তাই লেকের পানিতে ছুঁড়ে ফেলে ‘লাভ পয়েন্ট’ এর ‘লাভ লক’ কার্যক্রমের সূচনা করেন । লাভ পয়েন্টে তালা লাগিয়ে চাবি কাপ্তাই লেকে পানিতে ছুড়ে ফেলার মানে হলো হলো ‘আমি আমার প্রিয়তম অথবা প্রিয়তমাকে আজীবনের জন্য নিজের সাথে বন্ধি করে রাখলাম। অথৈ পানিতে যেহেতু কোনদিন চাবিটি খুঁজে পাওয়া যাবে না, এর মানে লাভ লকের কোনদিন তালাও খোলা হবেনা’।

নব বিক্রম কিশোর ত্রিপুরা বলেন, এই লাভ পয়েন্টে যে কেউ আসতে পারবেন এবং ইচ্ছে করলে লাভ পয়েন্টে তালা লাগিয়ে চাবি পানিতে ছুড়ে ফেলে ভালোবাসার বন্ধন অটুট রাখতে পারবেন। এই লাভ পয়েন্টে এসে নতুন প্রজন্ম যাতে ভালোবাসার বন্ধন সম্পর্কে ইতিবাচক ধারণা পায়, প্রিয় মানুষকে ভালোবাসার বন্ধনে আবদ্ধ রাখার পাশাপাশি দেশ ও জাতিকে ভালোবাসতে শেখে সেই উদ্দেশ্যকে সামনে রেখেই লাভ পয়েন্ট নির্মাণ করা হয়।

পলওয়েল পার্কে রয়েছে ভালোবাসার অমর জুটি আলাউদ্দিন-লিমা দম্পত্তির স্মরণে দেশের একমাত্র লাভ-লক পয়েন্ট। যেখানে এসে আপনিও আপনার ভালোবাসাকে বন্দি করতে পারেন মজবুত তালা-চাবির বন্ধনে। আপনার প্রিয় মানুষটির সাথে আপনার ভালোবাসাকে অমর করে রাখার প্রত্যাশায় লাভ-লক পয়েন্টে তালা বন্ধ করে চাবি ফেলে দিতে পারেন কাপ্তাই লেকের অতল গভীরে।

লাভ পয়েন্টে রয়েছে আকর্ষণীয় পিকনিক স্পট, সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান করার সম্পূর্ণ সুবিধা যেমন-মঞ্চ, আলোকসজ্জা ও উন্নতমানের সাউন্ড সিস্টেম। আপনি যে কোন প্রকার পিকনিক, সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান ও আনন্দ আয়োজনের জন্য সাচ্ছন্দে বেছে নিতে পারেন লেকের অপরুপ ভিউ সমৃদ্ধ লাভ পয়েন্টকে।

আর্কাইভ

সোম মঙ্গল বুধ বৃহ শুক্র শনি রবি
 
১০১১
১২১৩১৪১৫১৬১৭১৮
১৯২০২১২২২৩২৪২৫
২৬২৭২৮২৯৩০৩১  
তেঁতুলিয়ায় জাল দলিল, ভূয়া ওয়ারিশানে রমরমাট ভাবে চলছে জমি ক্রয়ের পাঁয়তারা

Development by: webnewsdesign.com