শুক্রবার ৭ই অক্টোবর, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ | ২২শে আশ্বিন, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

মেঘনায় এলজিইডি প্রকৌশলী খন্দকার মাহমুদুল আশরাফের দূনীতি

নিজস্ব প্রতিবেদক   |   বুধবার, ০৭ সেপ্টেম্বর ২০২২ | প্রিন্ট

মেঘনায় এলজিইডি প্রকৌশলী খন্দকার মাহমুদুল আশরাফের দূনীতি

মেঘনায় এলজিইডি প্রকৌশলী খন্দকার মাহমুদুল আশরাফের বিরুদ্ধে ঠিকাদার ১৭টি আইটেমের কাজ না করার পরেও চূড়ান্ত বিল দেয়ার জন্য সুপারিশ করে জেলা নির্বাহী প্রকৌশলীর কাছে ফাইল পাঠানের অভিযোগ উঠেছে। এলজিডির নির্বাহী প্রকৌশলী কুমিল্লা এবিষয়ে তদন্ত করে ১৭টি আইটেমে কাজ না করার বিষয়টি নিশ্চিত হলে, নির্বাহী প্রকৌশলী মির্জা মোহাম্মদ ইফতেখার আলী উপজেলা প্রকৌশলীকে কর্তব্যকাজের অবহেলা অদক্ষতা ও সরকারি কর্মচারি শৃঙ্খলা বহির্ভূত কাজের জন্য এই নোটিশ দেন ।

উপজেলা প্রকৌশলী কার্যালয় সূত্রে জানা গেছে,উপজেলার বড়কান্দা ইউনিয়নে গ্রামীণ বাজার অবকাঠামো উন্নয়ন শীর্ষক প্রকল্পের আওতায় রামপুর বাজার উন্নয়নের প্রায় ২কোটি টাকা ব্যয়ের কাজ পান রফিক কন্সট্রাকশন নামের একটি প্রতিষ্ঠান। বাজার উন্নয়নের কাজ শেষ পর্যায়ে রয়েছে। গত আগস্ট মাসের প্রথম সপ্তাহে উপজেলা প্রকৌশলী খন্দকার মাহমুদুল আশরাফ এই কাজের সকল আইটেম সম্পন্ন হয়েছে এই মর্মে সুপারিশ করে এলজিডির নির্বাহী প্রকৌশলী কুমিল্লাকে বিল প্রস্তুত করে পাঠান। নির্বাহী প্রকৌশলী তার কার্যালয়ের উপ-সহকারী প্রকৌশলী জাকির হোসেন ও সাইফুদ্দিন আজম গত ১৬ আগস্ট সরেজমিন তদন্ত করে রামপুর বাজার উন্নয়ন কাজের ১৭টি স্থানে অনিয়ম দেখতে পান। এবিষয় গুলো উল্লেখ করে নির্বাহী প্রকৌশলী বরাবর একটি প্রতিবেদন দাখিল করেন। এতে উল্লেখ করা হয় ভবনের সাফ ফেস ড্রেন বাস্তবে ৮০মিটার থাকলেও বিলে ১শ মিটার দেখানো হয়। ভবনের ফলস সিলিং বাস্তবে না থাকলেও পরিমাপ বহিতে দেখানো হয়। ভবনের ইউনি ব্লক কাজের কার স্টোন বাস্তবে না থাকলেও বিল প্রস্থুত করা হয়। ভবনের সিঁড়ি ও ছাদের রেলিং এর উচ্চতা বাস্তবে ২ফুট ৯ইঞ্চি থাকলেও দেখানো হয় ৩ফিট। ভবনের বাথরুমের ডোর ফ্যান চারটি থাকলেও দেখানো হয় ছয়টি। ভবনের বাথরুমের ডোর সাটার বাস্তবে চারটি থাকলেও দেখানো হয় ছয়টি। ভবনের বাথ রুমের লং প্লান বাস্তবে দুটি থাকলেও দেখানো হয় ৪টি। ভবনের বাথরুমের বিব কক বাস্তবে ৪টি থাকলেও দেখানো হয় ৮টি। ভবনের বাথরুমের পেপার হোল্ডার বাস্তবে দুটি থাকলেও দেখানে হয় ৪টি। ভবনের ছাদে পানির ট্যাংক বাস্তবে একটি পরিমাপ বহিতে দুটি দেখানো হয়। ভবনের ইন্সপেকশন পিট বাস্তবে নাই কিন্তু পরিমাপ বহিতে ১৬টি দেখানো হয়। ভবনের ইন্সপেকশন পিট কভার বাস্তবে নাই কিন্তু পরিমাপ বহিতে ১৬টি বিল প্রস্ত করা হয়েছে। ভবনের বাথরুমের টাওয়েল রেইল বাস্তবে নাই। পরিমাপ বহিতে ২টি বিল প্রস্তুত করা হয়েছে। ভবনের বাথরুমের গ্লাস সেলফ বাস্তবে নাই পরিমাপ বহিতে ২টি বিল প্র¯ুÍত করা হয়েছে। ভবনের বাথরুমের সাবানধানী বাস্তবে নাই পরিমাপ বহিতে ২টি বিল প্রস্তুত করা হয়েছে। ভবনের ফায়ার এক্সটিনগুইসার বাস্তবে নাই বহিতে ৪টি বিল প্রস্তুত করা হয়েছে। ভবনে নিচতলার এলইডি লাইট বাস্তবে নাই কিন্তু পরিমাপ বহিতে ৬৫টি বিল প্রস্তুত করা হয়েছে। এছাড়াও মার্কেট ভবনের ডিজাইনে দোতলার দুই পাশে ২টি করে মোট ৪টি বাথরুমের ব্যবস্থা থাকলেও বাস্তবে দোতলার দুই পাশে ১টি করে মোট ২টি বাথরুম করা হয়েছে। যা ডিজাইন বহির্ভূত। রফিক কন্ট্রাকশনের মালিক মো: রফিকের সাথে মুঠোফোনে একাধিকবার যোগাযোগের চেষ্টা করা হলেও তিনি ফোন রিসিভ করেননি।

উপসহকারী প্রকৌশলী জাকির হোসেন জানান, নির্বাহী প্রকৌশলী স্যারের নির্দেশে আমরা রামপুর বাজার উন্নয়ন কাজ পরিদর্শন করি। এসময় আমরা ১৭টি আইটেমে কাজ না করেও কাজ করা হয়েছে এই মর্মে চূড়ান্ত বিল দেয়ার জন্য সুপারিশ করা হয়েছিলো বিষয়টি আমরা নির্বাহী প্রকৌশলী স্যারকে লিখিতভাবে জানিয়েছি।

মেঘনা উপজেলা প্রকৌশলী মাহমুদুল আশরাফ জানান, ঠিকাদার অসুস্থ থাকার কারণে কাজ করে দিবে বলায় আমি কাজ সম্পন্ন হয়েছে এই মর্মে চূড়ান্ত বিল প্রদান করতে স্যারের কাছে সুপারিশ করি। স্যার তদন্ত করে কিছু কাজের ত্রুটি পাওয়ায় আমাকে কারণ দর্শানোর নোটিশ দিয়েছেন। এখনও আমি জবাব দেইনি। কাজের স্বার্থে আমি এমনটা করেছি।

এলজিইডির নির্বাহী প্রকৌশলী কুমিল্লা মির্জা মোহাম্মদ ইফতেখার আলী জানান, মেঘনার রামপুর বাজারের কাজের চূড়ান্ত বিলের জন্য উপজেলা প্রকৌশলী একটি সুপারিশ করে আমার কাছে পাঠিয়েছিলো। বিষয়টি আমার দুই প্রতিনিধির মাধ্যমে তদন্ত করে ১৭টি আইটেমের অনিয়ম পাওয়া গেছে। এঘটনায় কর্তব্য পালনে অবহেলা সরকারি কর্মচারি শৃংখলা ও আপিল বিধিমালা লঙ্গন করা হয়েছে। একারণে উপজেলা প্রকৌশলীকে কারণ দর্শানোর নোটিশ দেয়া হয়েছে। বাকি কাজ শেষ হলেই চূড়ান্ত বিল দেয়া হবে।
এদিকে গত ১৩ এপ্রিল লাইভে এসে উপজেলা ঠিকাদার মোহাম্মদ সেলিম আহমেদ এই প্রকৌশলীর নামে বিভিন্ন অনিয়মের অভিযোগ তুলেছেন। তিনি বলেন, ঘুষ ছাড়া এ প্রকৌশলী একটা ফাইলে সাইন করে না, আমরা কাজ করেও বিল পাইনা। এদিকে কাজ না করেই বিল দিয়ে দেন।

প্রকল্পের পিডি জানান, আমি বিষয়টি খতিয়ে দেখছি। অনিয়ম করলে কোন ছাড় দেওয়া হবে না।

সূত্র জানা যায়, ঠিকাদারদের সাথে মিলে সবকাজে এরকম অনিয়ম করে থাকেন । তার অনিয়মের বিষয়ে আমাদের অনুসন্ধান চলছে। আগামী সংখ্যায় তার দূনীতির সকল বিষয় আপনাদের সামনে তুলে ধরবে ঢাকা নিউজের অনুসন্ধান টিম।

Facebook Comments Box
advertisement

Posted ৪:১২ অপরাহ্ণ | বুধবার, ০৭ সেপ্টেম্বর ২০২২

dhakanewsexpress.com |

advertisement
advertisement
advertisement

আর্কাইভ

শনি রবি সোম মঙ্গল বুধ বৃহ শুক্র
১০১১১২১৩১৪
১৫১৬১৭১৮১৯২০২১
২২২৩২৪২৫২৬২৭২৮
২৯৩০৩১  
মোঃ মাসুদ রানা হানিফ সম্পাদক