সোমবার ৫ই ডিসেম্বর, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ | ২০শে অগ্রহায়ণ, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

শিরোনাম >>
শিরোনাম >>

ভাটির বাথান-ছিদ্দিকুর রহমান আনার

নিজস্ব প্রতিবেদক   |   বৃহস্পতিবার, ০৩ নভেম্বর ২০২২ | প্রিন্ট

ভাটির বাথান-ছিদ্দিকুর রহমান আনার

ছিদ্দিকুর রহমান আনার

-ফাইল ছবি

ভাটির হাওরে কৃষক তৈরি করে নেয় বাথান সেই ঘরেতে বাস করে গরু মহিষ কৃষাণ।

ছনের ছাউনি বাঁশের খুঁটিতে ঘর থাকে খাড়া,

পৌষ থেকে জৈষ্ঠ্যমাস পর্যন্ত সেখানে থাকে কৃষকেরা।

গরু মহিষ চড়ে থাকে হাওরের মাঠে মাঠে ঘাস খেয়ে আসে, যখন সুর্য নামে পাটে।

নাদুসনুদুস হয় গোরু মহিষ সেখানে ঘাস খেয়ে কৃষককে স্বাবলম্বী করে গাভী প্রচুর দুধ দিয়ে।

প্রতিদিন দুধ বেপারি যায় দুধ কিনতে বাথানে এতে সঠিক দাম পায় থাকে প্রত্যেক কৃষাণে,

সকালে বাথানিদের খাবার পানতা ভাত আর দধি আরও ভালো পশারী নিয়ে যায় কলা যদি।

পানতা ভাত খেয়ে কৃষক উইডার জমিতে মারে তারপর সেচ সার দিয়ে জমি উর্বর করে।

জিরাতিগণ বৈশাখ জৈষ্ঠ্যমাস পর্যন্ত সেখানে থাকে অপেক্ষায়,

সোনালী ফসল তোলে বাথানের পাশে ধানের খলায়।

কিছুদিন তারা নতুন পানি আসার অপেক্ষায় থাকে ধান খড় বাথানঘর নৌকায় আসে বাড়ির দিকে ।

তখন নবান্নের গন্ধে কৃষাণী ও ছেলেমেয়েরা খুশীতে আত্মহারা,

ডাক ঢোল পিটিয়ে খড়ের লাশ দেয় তারা।

তারপর নতুন ধান তুলে স্ত্রী সন্তানের জন্য নতুন জামা কাপড় কিনে কৃষকেরা হয় ধন্য।

বাড়িতে বাথানঘর রেখে দেয় অতি যত্ন সহকারে আগামী বছর আবার তারা ব্যবহার করার তরে।

Facebook Comments Box
advertisement

Posted ৬:০৮ অপরাহ্ণ | বৃহস্পতিবার, ০৩ নভেম্বর ২০২২

dhakanewsexpress.com |

advertisement
advertisement
advertisement

এ বিভাগের আরও খবর

আর্কাইভ

শনি রবি সোম মঙ্গল বুধ বৃহ শুক্র
 
১০১১১২১৩১৪১৫১৬
১৭১৮১৯২০২১২২২৩
২৪২৫২৬২৭২৮২৯৩০
৩১  
মোঃ মাসুদ রানা হানিফ সম্পাদক