জনপ্রিয় সংবাদ

x

বাদ পড়া বাড়ি/স্থাপনায় এডিস মশা নির্মূলে ডিএনসিসির চিরুনি অভিযান

বৃহস্পতিবার, ০৫ সেপ্টেম্বর ২০১৯ | ৬:১৪ অপরাহ্ণ | 28 বার

বাদ পড়া বাড়ি/স্থাপনায় এডিস মশা নির্মূলে ডিএনসিসির চিরুনি অভিযান
বাদ পড়া বাড়ি/স্থাপনায় এডিস মশা নির্মূলে ডিএনসিসির চিরুনি অভিযান ।

এডিস মশা নির্মূলে ২৫ আগস্ট থেকে ৩ সেপ্টেম্বর পর্যন্ত ঢাকা উত্তর সিটি কর্পোরেশনের (ডিএনসিসি) ১ নং ওয়ার্ড থেকে ৩৬ নং ওয়ার্ড পর্যন্ত ‘এডিস মশা ধ্বংসকরণ ও বিশেষ পরিচ্ছন্নতা অভিযান’ অর্থাৎ ‘চিরুনি অভিযান’ চালানো হয়। চিরুনি অভিযানকালে বিভিন্ন কারণে কিছু বাড়ি/স্থাপনা বাদ পড়ে। এসকল বাড়ি/স্থাপনায় গত দুই দিন ধরে ‘চিরুনি অভিযান’ পরিচালনা করা হচ্ছে।

পরিচ্ছন্নতা ও মশক নিধনকর্মীগণ আজ বৃহস্পতিবার ডিএনসিসির ৩৬টি ওয়ার্ডে সকল বাদ পড়া ৭ হাজার ৫৫০টি বাড়ি ও স্থাপনা পরিদর্শন করে মোট ৩৯টি বাড়ি ও স্থাপনায় এডিস মশার লার্ভা খুঁজে পায়। লার্ভা পাওয়া এ সব বাড়ি ও স্থাপনায় ‘এ বাড়ি/স্থাপনায় এডিস মশার লার্ভা পাওয়া যায়’ লেখা স্টিকার লাগানো হয়। এ ছাড়া ৪ হাজার ৮৯৪টি বাড়ি ও স্থাপনায় এডিস মশার বংশবিস্তার উপযোগী স্থান/জমে থাকা পানি পাওয়া যায়। এডিস মশার বংশবিস্তারের উপযোগী এ সকল স্থান ধ্বংস করা হয়। প্রতিটি ওয়ার্ডের সংশ্লিষ্ট কাউন্সিলরগণ ‘চিরুনি অভিযান’ সক্রিয়ভাবে তত্বাবধান করছেন।

গত ২৫ আগস্ট থেকে গত ১২ দিনে ৩৬টি ওয়ার্ডে সর্বমোট ১ লক্ষ ২১ হাজার ৫৬০টি বাড়ি ও স্থাপনা পরিদর্শন করে মোট ১ হাজার ৯৫৭টি বাড়ি ও স্থাপনায় এডিস মশার লার্ভা খুঁজে পাওয়া যায়। এ ছাড়া ৬৭ হাজার ৩০৬টি বাড়ি ও স্থাপনায় এডিস মশার বংশবিস্তার উপযোগী স্থান/জমে থাকা পানি পাওয়া যায়। সেসব স্থানগুলো ধ্বংস করে লার্ভিসাইড প্রয়োগ করা হয়। চিরুনি অভিযানকালে মাটির পাত্র, ফুলের টব, পানির ট্যাংকের নিচ, ড্রাম, চিপ্সের প্যাকেট, পরিত্যক্ত পানির হাউজ, কলসি, পরিত্যক্ত বেসিন, কমোড ও টয়লেটের ফ্লাশ, বালতি, টায়ার, খাবারের প্লাস্টিক-প্যাকেট, লিফটের নিচ, নির্মাণাধীন ভবন, ডোবা, পলিথিন, ডাবের খোসা, নিচু জায়গা, ছোট পাত্র, নারিকেলের মালা, পানির ড্রাম, মাটির হাড়ি, প্লাস্টিকের পাত্র, বাড়ির ছাদ, দুই বাড়ির মধ্যবর্তী স্থান, ওয়াসার মিটার, গ্যারেজ ইত্যাদি জায়গায় এডিস মশার লার্ভা এবং এডিস মশা বংশবিস্তার উপযোগী পরিবেশ পাওয়া যায়।

 

বাদ পড়া বাড়ি/স্থাপনায় এডিস মশা নির্মূলে ডিএনসিসির চিরুনি অভিযান চালানো হয় । মশক কর্মীরা প্রতিটি জায়গায় ঔষধ ছিটান ।

 

 

এডিস মশা নির্মূলে আজও ডিএনসিসির ভ্রাম্যমাণ আদালত অব্যাহত ছিল। নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট জুলকার নায়ন উত্তরায় রাস্তা ও ফুটপাত দখল করে নির্মাণ সামগ্রী রাখার অপরাধে এক ব্যক্তিকে ১০ হাজার টাকা এবং ডিএনসিসির ড্রেনের স্লাব চুরি করার অপরাধে আরেক ব্যক্তির কাছ থেকে ১০ হাজার টাকা জরিমানা আদায় করেন।

এডিস মশা নির্মূলে বছরব্যাপী ডিএনসিসির কর্মসূচি ও ভ্রাম্যমাণ আদালত অব্যাহত থাকবে।

‘ তিন-চারটা মিনিট আগে যদি খাবার আনতে যাইতাম, তাহলে পোলাডারে বাঁচাইয়া রাখতে পারতাম ‘

Development by: webnewsdesign.com