পারিবারিক কবরস্থানেই শেষ ঠিকানা হল, বিমান ছিনতাইয়ের ঘটনায় নিহত পলাশের

মঙ্গলবার, ২৬ ফেব্রুয়ারি ২০১৯ | ৮:৫৩ অপরাহ্ণ | 184 বার

পারিবারিক কবরস্থানেই শেষ ঠিকানা হল, বিমান ছিনতাইয়ের ঘটনায় নিহত পলাশের
পারিবারিক কবরস্থানেই শেষ ঠিকানা হল, বিমান ছিনতাইয়ের ঘটনায় নিহত পলাশের

ঢাকা থেকে দুবাইগামী বাংলাদেশ বিমানের ‘ময়ূরপঙ্খী’ উড়োজাহাজ ছিনতাইকারী কথিত মাহাদীর পলাশের দাফন সম্পূন হয়েছে। মঙ্গলবার সকাল ৯ টায় তার জানাযা শেষে স্থানীয় কবর স্থানে তাকে দাফন করা হয়েছে। এর আগে গতকাল রাতে ময়না তদন্ত শেষে তার লাশ তার পরিবারের কাছে হস্তান্তর করা হয়।

সোনারগাঁও থানার উপ পরিদর্শক (এসআই) আবুল কালাম আজাদ জানান, গতকাল রাতে চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে তার ময়না তদন্ত শেষে পলাশের বাবা পিয়ার জাহানের কাছে তার লাশ হস্তান্তর করা হয়। ভোর সকালে তার বাবা লাশ নিয়ে গ্রামের বাড়িতে পৌছে। পরে ৯টার দিকে তার জানাযা শেষে স্থানীয় মঙ্গলের গাঁও কবর স্থানে তাকে দাফন করা হয়।



নিহত পলাশের বাবা পিয়ার জাহান সরদার জানান, সোমবার দিবাগত রাত তিটার দিকে চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল মর্গে তিনি লাশ শনাক্ত করেন। এরপর যাচাই-বাছাই শেষে লাশ গ্রহণ করে রাতেই পলাশের মরদেহ নিয়ে বাড়ির উদ্দেশ্যে রওনা হন।

এ ব্যাপারে জেলা পুলিশের বিশেষ শাখার (মিডিয়া) পরিদর্শক মো: সাজ্জাদ রোমন গণমাধ্যমকে জানান, পুলিশ সুপার মোহাম্মদ হারুন অর রশিদের নির্দেশে সোনারগাঁও থানা পুলিশ লাশের জানাজা ও দাফন সুষ্ঠুভাবে সম্পন্ন করতে সব ধরনের সহযোগিতা করেছে।

এর আগে সোমবার দিবাগত রাত ১২টায় চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজে লাশ শনাক্ত করে তার পরিবার। মরদেহ গ্রহণের পর পলাশের চাচা দ্বীন ইসলাম সাংবাদিকদের জানান, বিমান ছিনতাইয়ের মত এত বড় ঘটনা পলাশের একার পক্ষে কখনই সম্ভব নয়। এর পেছনে বড় কারো ইন্ধন থাকতে পারে। সকল প্রক্রিয়া শেষ করে মরদেহ গ্রামের বাড়ি নিয়ে আসা হয়।

এর আগে দুপুরে চমেকে পলাশের লাশে ময়নাতদন্ত করা হয়। সন্ধ্যায় বিমান ছিনতাইয়ের ঘটনায় সিএমপির পতেঙ্গা থানায় সন্ত্রাসবিরোধী আইনে মামলা দায়ের করে বেসামরিক বিমান চলাচল কর্তৃপক্ষ (বেবিচক) মামলায় পলাশ মাহমুদ ছাড়াও অজ্ঞাতদের আসামি করা হয়েছে।

উল্লেখ্য, গত ২৪ ফেব্রুয়ারী রবিবার বিকাল সাড়ে চারটার দিকে বাংলাদেশ বিমানের নতুন উড়োজাহাজ ময়ূরপঙ্খী ঢাকার হযরত শাহজালাল আন্তর্জাতিক বিমানবন্দর থেকে ১৪২ জন যাত্রী ও পাঁচজন ক্রু নিয়ে দুবাই যাচ্ছিল। কিছু সময় পর বিমানটি ১৫ হাজার ফুট উপরে ওঠার পর বিমানের যাত্রী সোনারগাঁয়ের পিরোজপুর ইউনিয়নের দুধঘাটা গ্রামের পিয়ার জাহানের ছেলে পলাশ একটি পিস্তল দেখিয়ে বিমানটি ছিনতাইয়ের চেষ্টা চালায়। এ সময় চালক বিমানটিকে চট্টগ্রামের শাহ আমানত আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরে জরুরী অবতরণ করান। এরপর প্রায় ৩ ঘন্টার টান টান উত্তেজনার পর সন্ধ্যা সাড়ে ৭টার দিকে কমান্ডো অভিযানে পলাশেল মৃত্যুর মধ্যদিয়ে বিমান ছিনতাই চেষ্টার ঘটনার অবসান ঘটে। পরে পলাশের হাতে থাকা অস্ত্রটি একটি খেলনা পিস্তল ছিলো বলে আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর পক্ষ থেকে সংবাদ সম্মেলনে জানানো হয়।

নিহত পলাশ চলচ্চিত্র অভিনেত্রী সিমলার সাবেক স্বামী ছিলেন। গত দশ মাস আগে তাদের বিয়ে হয়েও এর প্রায় তিন মাস পর তাদের মধ্যে ডিভোর্স হয়। বিমান ছিনতাই চেষ্টার ঘটনায় পলাশ নিহত হবার পর সিমলার সাথে তার অন্তরঙ্গ মূহুর্তের বেশ কিছু ছবি সামাজিক যোগহাযোগ মাধ্যম ফেসবুকে ভাইরাল হয়। এত ব্যাপক আলোচনা সমালোচনার মুখোমুখি হন চিত্রনায়িকা সিমলা ।

আর্কাইভ

সোম মঙ্গল বুধ বৃহ শুক্র শনি রবি
 
১০১১১২
১৩১৪১৫১৬১৭১৮১৯
২০২১২২২৩২৪২৫২৬
২৭২৮২৯৩০৩১  
প্রশাসন ক্যাডারে ১ম হলেন নারায়ণগঞ্জ জেলার আড়াইহাজারের রুহুল আমিন শরিফ

Development by: webnewsdesign.com