সর্বশেষ সংবাদ

x



পঞ্চগড়ে কাঁচা চা পাতা নিয়ে কারখানা মালিকদের সিন্ডিকেট

সোমবার, ২৯ জুন ২০২০ | ৯:৪৩ অপরাহ্ণ | 19 বার

পঞ্চগড়ে কাঁচা চা পাতা নিয়ে কারখানা মালিকদের সিন্ডিকেট
পঞ্চগড়ে কাঁচা চা পাতা নিয়ে কারখানা মালিকদের সিন্ডিকেট
পঞ্চগড়ে কাঁচা চা পাতার মূল্য ৪৮ ঘন্টার মধ্যে সন্তোষজনক নির্ধারণ করা না হলে দূর্বার আন্দোলনের মাধ্যমে এখানকার চা শিল্পকে ধ্বংসের হাত থেকে রক্ষার ঘোষণা দিয়েছে বাংলাদেশ স্মল টি গার্ডেন ওনার্স এসোসিয়েশন।
রোববার দুপুরে পঞ্চগড়ের বিভিন্ন গণমাধ্যম সংবাদকর্মীদের নিয়ে সংবাদ সম্মেলনে এসোসিয়েশনের সভাপতি আমিরুল হক খোকন এ ঘোষণা দেন।
তিনি বলেন, প্রতি মৌসুমে ১৫টি চা নিলাম বাজারের গড় মূল্যের উপর ভিত্তি করে জেলা প্রশাসকের সভাপতিত্বে গত ২৫ ফেব্রুয়ারি অনুষ্ঠিত কাঁচা চা পাতার মূল্য নির্ধারণ কমিটির সভায় প্রতি কেজি কাঁচা চা পাতার মূল্য নির্ধারণ করা হয় ১৪ টাকা। পরবর্তী সভা না হওয়া পর্যন্ত ধার্য্যকৃত মূল্যে কাঁচা চা পাতা ক্রয় অব্যাহত থাকবে। কিন্তু ১৫টি নিলাম সম্পন্ন হওয়ার পূর্বেই মূল্য নির্ধারণ কমিটিকে অগ্রাহ্য করে চা কারখানা মালিকরা সিন্ডিকেট করে এক তরফা ভাবে গত ২৫ জুন থেকে ১২ টাকা কেজি দরে ক্রয় শুরু করেছে।
এসোসিয়েশনের সভাপতি বলেন, এই সিন্ডিকেট মূল্য হ্রাসের পাশাপাশি নানা অজুহাতে মনগড়া ও মর্জিমাফিক চা চাষীদের সরবরাহকৃত কাঁচা চা পাতার ওজন ২৫ থেকে ৩০ শতাংশ পর্যন্ত কর্তন করে মূল্য প্রদান করছে। ফলে চা বাগান মালিক/ চা চাষীরা উৎপাদন খরচের অনেক কম মূল্যে কাঁচা চা পাতা বিক্রি করতে বাধ্য হচ্ছেন। এতে করে চাষীরা বিপুল পরিমাণ আর্থিক ক্ষতির সম্মুখীন হচ্ছেন। এ অশুভ তৎপরতা পঞ্চগড়ের সম্ভাবনাময় চা শিল্পকে ধ্বংসের ষড়যন্ত্র। ভিডিও কনফারেন্সের মাধ্যমে পঞ্চগড়ের চা শিল্পের সংকট এর আগে প্রধানমন্ত্রীকে অবহিত করেছি।
সংবাদ সম্মেলনে এসোসিয়েশনের উপদেষ্টা জেলা পরিষদ চেয়ারম্যান ও জেলা আ’লীগের সাধারণ সম্পাদক চা চাষী আনোয়ার সাদাত সম্রাট বলেন, পঞ্চগড়ের চা শিল্পের সংকট নিরসন ও পঞ্চগড়ে চায়ের নিলাম মার্কেট চালু করতে শিগগিরই প্রধানমন্ত্রী বরাবরে আবেদন করা হবে। কারখানায় সরবরাহকৃত নিজের উৎপাদিত কাঁচা চা পাতা কর্তন করা হয়েছে। চা বোর্ডের মতে এক কেজি কাঁচা চা পাতা উৎপাদন করতে খরচ পড়ে ১৭ টাকা। সেখানে কর্তন করে
মূল্য দাঁড়ায় ৫ থেকে ৭ টাকা।
এসোসিয়েশনের সহ সভাপতি এ বি এম আখতারুজ্জামান শাহজাহান বলেন, কারখানা মালিকরা ১২ টাকা কেজিতে চা পাতা বিক্রি করতে বাধ্য করছে চা চাষিদের। এছাড়া বিনা কারণে ২০ শতাংশ থেকে ৬০ শতাংশ কর্তন করা হচ্ছে। অকশন মার্কেটের দোহাই দিয়ে কারখানা মালিকরা সিন্ডিকেট করে কাঁচা চা পাতার মূল্য কমিয়ে দিয়েছেন এবং সরবরাহকৃত চা পাতা কর্তন করছেন। কারখানা মালিকরা অতি মুনাফার লোভে নিম্নমানের চা উৎপাদন করায় কমমূল্যে বিক্রি হচ্ছে। কিন্তু খুচরা বাজারে চায়ের মূল্য ঊর্ধ্বগতি।
এ সময় এসোসিয়েশনের জেষ্ঠ্য সহ সভাপতি আবু বকর ছিদ্দিকসহ চা বাগান মালিক/চা চাষীরা উপস্থিত ছিলেন।
চা কারখানা মালিকদের সংগঠনের সভাপতি মো. মোশাররফ হোসেন বলেন, নিলাম মার্কেটে চায়ের মূল্য কমে গেছে। বাগান মালিক/ চা চাষীরা বয়স্ক ও ভেজা কাঁচা চা পাতা সরবরাহ করছে। কারখানা মালিকরা বাধ্য হয়ে কাঁচা চা পাতার মূল্য কমিয়েছে এবং কর্তন করছে।



আর্কাইভ

সোম মঙ্গল বুধ বৃহ শুক্র শনি রবি
 
১০১১১২
১৩১৪১৫১৬১৭১৮১৯
২০২১২২২৩২৪২৫২৬
২৭২৮২৯৩০৩১  
প্রশাসন ক্যাডারে ১ম হলেন নারায়ণগঞ্জ জেলার আড়াইহাজারের রুহুল আমিন শরিফ

Development by: webnewsdesign.com