সর্বশেষ সংবাদ

x



দুই দল মাঠে নামছে আটঘাট বেঁধে, চলছে বৈঠক, হচ্ছে কেন্দ্রভিত্তিক কমিটি

নৌকা ধানের শীষের লড়াই ! প্রতীক পাওয়ার পর আনুষ্ঠানিক প্রচারণা

মঙ্গলবার, ৩১ ডিসেম্বর ২০১৯ | ৪:২৪ পূর্বাহ্ণ | 107 বার

নৌকা ধানের শীষের লড়াই ! প্রতীক পাওয়ার পর আনুষ্ঠানিক প্রচারণা
নৌকা ধানের শীষের লড়াই !

রাজধানী ঢাকার দুই সিটি করপোরেশন উত্তর আর দক্ষিণের ভোটের উত্তাপ দিয়েই যাত্রা শুরু হচ্ছে এই নতুন বছরের।

আসছে ৩০ জানুয়ারি২০২০ । দুই সিটি করপোরেশন, দুই মেয়র, পাশাপাশি কাউন্সিলর ও সংরক্ষিত মহিলা কাউন্সিলর ।



দেশের সব দলেরই অংশ গ্রহন নিয়েই হবে ভোটের লড়াই । মেয়র পদে ক্ষমতাসীন আওয়ামী লীগের নৌকা আর রাজপথের বিরোধী দল বিএনপির  ধানের শীষ, পাশাপাশি জাতীয় পার্টির লাঙ্গল ।এছাড়াও দেশের সব দলই ঢাকার দুই সিটি করপোরেশনের ভোটে লড়বে ।

এদের মধ্যে কোনো কোনো দল প্রতীক নিয়ে আবার কেউ কেউ জোটগতভাবে ভোটের লড়াইয়ে অংশ নেবে। কাউন্সিলর পদে প্রতীক না থাকলেও সবাই দল সমর্থিত প্রার্থী ঘোষণা করছে। কার্যত, লড়াই হবে নৌকা ও ধানের শীষের প্রার্থীদের মধ্যে।

আটঘাট বেঁধে মাঠে নামার প্রস্তুতি নিচ্ছে আওয়ামী লীগ ও বিএনপি। প্রতীক বরাদ্দের পরই প্রার্থীরা আনুষ্ঠানিকভাবে মাঠে নামবে। তবে এর আগেই শুরু হয়েছে ঘরোয়া বৈঠক। নিজ নিজ দলের নেতা-কর্মীরা মতবিনিময়ও শুরু করেছেন। প্রতিটি ভোটকেন্দ্রভিত্তিক কমিটি গঠনের কাজও শুরু হয়েছে।

প্রধান দুই দলের শীর্ষ নেতারাও এ ভোট পর্যবেক্ষণ করছেন।স্থানীয় সরকার বিশেষজ্ঞ ড. তোফায়েল আহমদ বাংলাদেশ প্রতিদিনকে বলেন, ‘সিটি ভোট নির্বাচন কমিশনের একটি রুটিন ওয়ার্ক। তারা তফসিল ঘোষণা করেছে। বলেছে, সবার অংশগ্রহণে একটি সুষ্ঠু ভোট করবেন। তাদের কথাই আমরা বিশ্বাস করতে চাই

সব রাজনৈতিক দল ভোটে যাচ্ছে-এটা ভালো খবর। কিন্তু ভোটাররা সুষ্ঠুভাবে ভোট দিতে পারবে কি না তা সময়ই বলে দেবে।

আওয়ামী লীগ : ঢাকার দুই সিটিতে নৌকার দুই মেয়র এবং দল সমর্থিত কাউন্সিলর পদপ্রার্থীদের বিজয়ী করার মিশন নিয়েই শুরু হচ্ছে নতুন বছর। তাই, আটঘাট বেঁধেই মাঠে নামছেন আওয়ামী লীগের নীতি নির্ধারণী ফোরামের নেতারা। ঢাকা সিটিতে এবারই প্রথম দলীয় প্রতীকে ভোট হচ্ছে। বিগত এক বছর ভোট, সরকার গঠন ও সম্মেলন নিয়ে ব্যস্ত থাকায় নতুন বছরের মিশনও ভোট। ইতিমধ্যে দুই মেয়র ও কাউন্সিলর পদপ্রার্থীদের তালিকা প্রকাশ করেছে দলটি। ঢাকা নিজেদের দখলে রাখতে তারা সর্বাত্মক প্রস্তুতি নিচ্ছে। জয়ের ধারা ধরে রাখতেই দক্ষিণে মেয়র পদপ্রার্থীর ক্ষেত্রে পরিবর্তন এনেছে। এখন চলছে ঘরোয়া প্রস্তুতি। দলীয় নেতা-কর্মীদের সঙ্গে ঘরোয়া বৈঠক করছেন মেয়র ও কাউন্সিলর প্রার্থীরা।

কেন্দ্রীয় আওয়ামী লীগও হোমওয়ার্ক করে রাখছে। দু-তিন দিনের মধ্যেই কেন্দ্রীয়ভাবে নির্বাচন পরিচালনা কমিটি গঠন করা হবে। দুই সিটিতে দুজন সিনিয়র নেতাকে প্রধান সমন্বয়কের দায়িত্ব দেওয়া হবে। মহানগর আওয়ামী লীগও দুটি পৃথক কমিটি গঠন করবে। থানা-ওয়ার্ডে গঠন করা হবে কেন্দ্রভিত্তিক নির্বাচন পরিচালনা কমিটি।

এ প্রসঙ্গে ঢাকা মহানগর উত্তর আওয়ামী লীগের সভাপতি শেখ বজলুর রহমান বাংলাদেশ প্রতিদিনকে বলেন, মেয়র ও কাউন্সিলর প্রার্থীদের জন্য পৃথক কেন্দ্রভিত্তিক কমিটি গঠন করার জন্য ইতিমধ্যে থানা ও ওয়ার্ডে নির্দেশ দিয়েছি। তারা অনেকেই কাজ শুরু করেছেন। আশা করি কয়েকদিনের মধ্যেই কমিটি গঠনের কাজ শেষ হবে।

আমরা নির্বাচনে মেয়রসহ কাউন্সিলর পদে জয়ী হব ইনশাআল্লাহ। নতুন বছরে জয়ের ধারাবাহিকতা ধরে রাখার লড়াইয়ে সর্বাত্মক প্রস্তুতি নিতে শুরু করেছে কেন্দ্রীয় আওয়ামী লীগ। এ জন্য কেন্দ্রীয়ভাবে নির্বাচন পরিচালনা কমিটি গঠনসহ প্রয়োজনীয় সব ধরনের প্রচার-প্রচারণার কৌশল নিতে শুরু করেছে। আওয়ামী লীগের নির্বাচনী প্রচারণার অন্যতম কৌশল হবে বিগত সময়ের উন্নয়নগুলো জনগণের সামনে তুলে ধরা। আগামীতে কেমন নগর উপহার দিতে চান সে বিষয়েও থাকবে প্রচারণায়। ঘরে ঘরে যাবেন নেতারা। এ প্রসঙ্গে আওয়ামী লীগের প্রেসিডিয়াম সদস্য জাহাঙ্গীর কবির নানক বাংলাদেশ প্রতিদিনকে বলেন, দু-তিন দিনের মধ্যেই আমরা কেন্দ্রীয়ভাবে নির্বাচন পরিচালনা কমিটি গঠন করব। বিষয়টি নিয়ে এখন আলাপ-আলোচনা চলছে।

দক্ষিণ সিটির মেয়র পদপ্রার্থী ব্যারিস্টার শেখ ফজলে নূর তাপস ও উত্তরের মেয়র পদপ্রার্থী আতিকুল ইসলাম আজ দুপুরে নির্বাচন কমিশনে তাদের মনোনয়নপত্র জমা দেবেন। দুই মেয়র প্রার্থী ছাড়াও কাউন্সিলর প্রার্থীদের কেউ কেউ মনোনয়নপত্র জমা দিয়েছেন আবার আজ অনেকেই দেবেন। দলীয় মনোনয়ন পাওয়ার পর দুই মেয়র প্রার্থী নগরবাসীর সহযোগিতা চেয়ে তাদের স্বপ্নের কথা তুলে ধরেছেন।

বিএনপি : দলীয় সূত্রে জানা গেছে, প্রতিকূল পরিবেশেও সিটি নির্বাচনের শেষ পর্যন্ত মাঠে থাকার নীতিগত সিদ্ধান্ত হয়েছে। বেগম খালেদা জিয়ার মুক্তি আন্দোলনের অংশ হিসেবেও নির্বাচনে যাওয়ার কথা বললেও কার্যত ভোটে অংশ নেওয়া ছাড়া সামনে কোনো পথ খোলা ছিল না। তৃণমূল নেতা-কর্মীদের চাঙ্গা করতেই এই সিদ্ধান্ত নেয় বিএনপি। একইভাবে আগামীতেও স্থানীয় সরকারসহ সব নির্বাচনেই  ভোটযুদ্ধে মাঠে থাকবে বিএনপি। নেতারা বলছেন, বেগম জিয়ার মুক্তি দাবিতে বৃহত্তর আন্দোলন গড়ে তুলতে হলে মাঠের নেতা-কর্মীদের রাজপথমুখী করাই মূল লক্ষ্য। তৃণমূলের নেতা-কর্মীরা দুইভাবে চাঙ্গা হন। একটি হলো ভোটের মাধ্যমে। অন্যটি দল পুনর্গঠনের মাধ্যমে। দুটি কাজই বিএনপি একসঙ্গে করে যাচ্ছে।

জানা যায়, বিএনপি হেভিওয়েট নেতাদের নিয়ে কেন্দ্রীয়ভাবে দুটি শক্তিশালী নির্বাচন পরিচালনা কমিটি করবে। প্রতিটি কেন্দ্রভিত্তিক কমিটি গঠন করা হবে। বিএনপি ও অঙ্গসংগঠন ছাড়াও জাতীয় ঐক্যফ্রন্ট ও ২০-দলীয় জোটের নেতৃত্বে পৃথক কমিটি করে প্রচারণা চালানো হবে। বিএনপি সমর্থিত বুদ্ধিজীবী ও সাংস্কৃতিক নেতাদের নিয়েও আলাদা কমিটি গঠন করে মাঠে নামবে দলটি। লন্ডন থেকে বিএনপির ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান তারেক রহমান নির্বাচন পর্যবেক্ষণ করবেন। দলের মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীরসহ স্থায়ী কমিটির সব সদস্যই নির্বাচন দেখভাল করবেন। এ দিকে আজ দুপুরে ধানের শীষের দুই প্রার্থী বিএনপি নেতা-কর্মীদের নিয়ে নির্বাচন কমিশনে মনোনয়নপত্র জমা দেবেন।

ঢাকা উত্তর সিটি করপোরেশনে বিএনপির মেয়র প্রার্থী তাবিথ আউয়াল বাংলাদেশ প্রতিদিনকে বলেন, আমার আশঙ্কা নির্বাচন ভুল করতে সরকার ও নির্বাচন কমিশন নিজেরাই তৎপরতা চালাবে। ফলাফল যাই  হোক আমি শেষ পর্যন্ত ভোটের মাঠে থাকব। ইভিএম পদ্ধতিতে ভোট গ্রহণ নিয়েও দেশ-বিদেশে নানা আপত্তি আছে। আমিও চাই স্বচ্ছ ব্যালটে ভোট হোক। সাংবাদিকসহ সব পর্যবেক্ষককে ভোট কেন্দ্রে প্রবেশের অনুমতি দেওয়া জরুরি।

ঢাকা সিটি দক্ষিণে বিএনপির প্রার্থী প্রকৌশলী ইশরাক হোসেন বলেন, প্রতিপক্ষ প্রার্থী নিয়ে কোনো ভয় পাচ্ছি না। আমাদের ভয় নির্বাচন ব্যবস্থা নিয়ে। ইভিএম নিয়ে জনমনে শঙ্কা কাজ করছে। ভোটাররা সঠিকভাবে তাদের ভোট প্রয়োগ করতে পারবেন কিনা সেটা নিয়েই আমাদের ভয়। তারপরও আমি ভোটের শেষ পর্যন্ত মাঠে থাকতে চাই। আমি একটি ইশতেহার দেব। সেখানে স্বল্পমেয়াদি, মধ্যমেয়াদি ও দীর্ঘমেয়াদি পরিকল্পনা থাকবে।

আর্কাইভ

সোম মঙ্গল বুধ বৃহ শুক্র শনি রবি
 
১০১১১২১৩১৪১৫১৬
১৭১৮১৯২০২১২২২৩
২৪২৫২৬২৭২৮২৯৩০
৩১  
রাত ১০টার পর বের হওয়া যাবে না বাসার বাইরে

Development by: webnewsdesign.com