মঙ্গলবার ২৭শে সেপ্টেম্বর, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ | ১২ই আশ্বিন, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

শিরোনাম >>
শিরোনাম >>

নবীগঞ্জে নোয়াদ্দা-কাইতাখালি স্কুলে চুরি

বন্দর সংবাদদাতা, জি এম রহমান :   |   রবিবার, ১৮ সেপ্টেম্বর ২০২২ | প্রিন্ট

নবীগঞ্জে নোয়াদ্দা-কাইতাখালি স্কুলে চুরি

নবীগঞ্জে নোয়াদ্দা-কাইতাখালি স্কুলে চুরি

-প্রতিনিধি

নারায়ণগঞ্জ ২৪নং ওয়ার্ডের নবীগঞ্জস্থ নোয়াদ্দা-কাইতাখালি সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে দুঃসাহসিক চুরির ঘটনা ঘটেছে। অজ্ঞাতনামা চোরেরা বিদ্যালয়ের
টিনের বেড়া কেটে স্টীলের আলমীরা ও ড্রয়ারে রক্ষিত নগদ ১০ হাজার টাকা লুটে নিয়েছে। ১৭ সেপ্টেম্বর
শনিবার রাতে যে কোন সময়ে এ ঘটনাটি ঘটে বলে জানান ।

এ ব্যাপারে প্রতিষ্ঠানের সহকারি শিক্ষিকা শরীফুন আক্তার বাদী হয়ে অজ্ঞাতনামা আসামী করে ১৮ সেপ্টেম্বর
রোববার সকালে বন্দর থানায় একটি সাধারণ ডায়েরী করেছেন। ডায়েরীতে উল্লেখ করা হয়,শুক্রবার-শনিবার দুইদিন স্কুল বন্ধ থাকার পর রোববার সকালে স্কুলে এসে
দেখতে পান স্কুল রুমের টিনের বেড়া কাটা এবং স্টীলের আলমীরাতে রক্ষিত নগদ ৬ হাজার ও
টেবিলের ড্রয়ারে রক্ষিত নগদ ৪ হাজার টাকা যথাস্থানে তারা দেখেন নেই । পরে তারা বিষয়টি ম্যানেজিং কমিটির সদস্যদের সঙ্গে আলোচনা করে সকালে বন্দর থানায় এ বিষয়ে একটি সাধারণ ডায়েরী করেন।

এদিকে নোয়াদ্দা-কাইতাখালি সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে
চুরির বিষয়ে জানতে চাইলে স্থানীয়রা জানান,এ স্কুলটি দীর্ঘ দিন ধরেই অরক্ষিত। এখানে শিক্ষা পরিবেশ নেই বললেই চলে। কোন মধ্যবিত্ত কিংবা উচ্চবিত্ত পরিবারের সন্তানদেরকে এই প্রতিষ্ঠানে পড়ানো হয়না। মহামারী
করোনার আগে নারায়ণগঞ্জ-৫ আসনের সংসদ সদস্য বীরমুক্তিযোদ্ধা একেএম সেলিম ওসমান বলে গিয়েছিলেন এটিকে ৩ তলা ভবনে রূপান্তরিত করবেন কিন্তু তার কথার কোন বাস্তবায়ন আমরা আদৌ পর্যন্ত দেতখতে পারছিনা। ছেলে-মেয়েরা অনেক ভোগান্তির মধ্যে এই স্কুলটিতে ক্লাস করে আসছে। টিনের বেড়ার কারণে পর্যপ্ত
ফ্যানও ব্যবহার করা হয়না। বহুমুখী সমস্যা রয়েছে স্কুলটিতে । এছাড়াও সন্ধার পরই মাদকসেবীদের আড্ডাতো আছেই। অপরাপর বাসিন্দা জানান,বিদ্যালয়টি নিয়ে কারো কোন গুরুত্ব নেই।

আমাদের এলাকার শিল্পপতি ও দানবীর রিয়াজউদ্দিন আল মামুন সাহেব এর আগে এটির টিনসেটের ব্যবস্থা করেছিলেন সেই অবস্থায়ই চলছে এটি। যদিও কিছু সরকারি অনুদান স্কুলটিতে এসেছিল তা নামমাত্র যা স্কুলের খুঁটি-নাটি কাজেই ব্যবহার করা হয়েছে। এভাবে একটি শিক্ষা প্রতিষ্ঠান চলতে পারেনা। বিষয়টি নারায়ণগঞ্জ-৫ আসনের মাননীয় সংসদ সদস্য বীর মুক্তিযোদ্ধা একেএম সেলিম ওসমানের সর্বোচ্চ গুরুত্ব দিয়ে দেখা উচিত।

পাশাপাশি উপজেলা নির্বাহী অফিসার এবং নারায়ণগঞ্জ সিটি কর্পোরেশনের মেয়র ডাঃ সেলিনা হায়াৎ আইভীরও সুদৃষ্টি প্রয়োজন। কেননা এটি তার সিটি এলাকার একটি শিক্ষা প্রতিষ্ঠান। প্রতিষ্ঠানের অগ্রগতিতে তারও দায়িত্ব এড়ানোর কোন সুযোগ নেই।

Facebook Comments Box
advertisement

Posted ১২:৪১ অপরাহ্ণ | রবিবার, ১৮ সেপ্টেম্বর ২০২২

dhakanewsexpress.com |

advertisement
advertisement
advertisement

আর্কাইভ

শনি রবি সোম মঙ্গল বুধ বৃহ শুক্র
 
১০১১১২১৩১৪১৫১৬
১৭১৮১৯২০২১২২২৩
২৪২৫২৬২৭২৮২৯৩০
মোঃ মাসুদ রানা হানিফ সম্পাদক