ধর্মীয় অনুভূতিতে আঘাতের অভিযোগ চবি কর্মচারী আটক

মঙ্গলবার, ১১ জুন ২০১৯ | ১:৪৬ পূর্বাহ্ণ | 206 বার

ধর্মীয় অনুভূতিতে আঘাতের অভিযোগ চবি কর্মচারী আটক
ধর্মীয় অনুভূতিতে আঘাতের অভিযোগ চবি কর্মচারী আটক

ধর্মীয় অনুভূতিতে আঘাতের অভিযোগে আইসিটি আইনে দায়ের করা এক মামলায় চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ের (চবি) হিসাব শাখার ঊর্ধ্বতন সহকারী নিবারণ বড়ুয়াকে সোমবার দুপুরে বিশ্ববিদ্যালয় ক্যাম্পাস থেকে পুলিশ তাকে আটক করে। বিকেলে বিষয়টি নিশ্চিত করেন হাটহাজারী মডেল থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) বেলাল উদ্দিন জাহাঙ্গীর । পুলিশ তাকে আটক করলে হিসাব শাখার ঊর্ধ্বতন সহকারী নিবারণ বড়ুয়াকে  কারাগারে পাঠিয়েছে আদালত।

সোমবার চট্টগ্রামের জ্যেষ্ঠ বিচারিক হাকিম বেগম সুস্মিতা আহমেদের আদালত এই আদেশ দিয়েছেন বলে জানান চট্টগ্রাম জেলা আদালতের পরিদর্শক (প্রসিকিউশন) বিজন কুমার বড়ুয়া।



তিনি বলেন, হাটহাজারী থানায় দায়ের করা আইসিটি আইনের একটি মামলায় নিবারণ বড়ুয়াকে গ্রেপ্তারের পর আদালতে হাজির করা হয়। আসামির পক্ষ থেকে জামিন চাওয়া হয়নি। আবার পুলিশের পক্ষ থেকে রিমান্ড আবেদনও করা হয়নি। পরে আদালত তাকে জেলহাজতে পাঠানোর আদেশ দিয়েছেন।

এর আগে গত ২৯ মে বিশ্ববিদ্যালয়ের কর্মকর্তা ও বঙ্গবন্ধু পরিষদ চবি শাখার সাধারণ সম্পাদক মশিউর রহমান বাদী হয়ে হাটহাজারী থানায় ডিজিটাল তথ্য প্রযুক্তি আইনে মামলা দায়ের করেন। এতে নিবারণ বড়ুয়াকে আসামি করা হয়।

মামলার এজাহার থেকে জানা যায়,  গত ২২ মে ফেসবুকে ‘অবশেষে জায়নামায কাত হয়ে পড়ে গেল’ লিখে নিবারণ বড়ুয়া একটি স্ট্যাটাস দেন। উক্ত স্ট্যাটাসটি বাদী মশিউর রহমানের দৃষ্টিগোচর হয়। যা ধর্মীয় অনূভূতিতে আঘাত হানে বলে মামলায় উল্লেখ করেন বাদী।

এ বিষয়ে মামলার বাদী মশিউর রহমান বলেন, ‘ইসলাম ধর্মের একটি পবিত্র জিনিস হলো জায়নামাজ। এটির ওপর নামাজ আদায় করা হয়। ফলে নিবারণ বড়ুয়ার ওই স্ট্যাটাস ধর্মীয় অনুভূতিতে আঘাত হেনেছে বলে একজন মুসলিম হিসেবে আমি মনে করি। সে প্রেক্ষিতে আমি মামলা করেছি। আইনানুযায়ী পুলিশ ব্যবস্থা নিয়েছে।

এর আগে গত ২৯ মে নিবারণ বড়ুয়াকে আসামি করে বিশ্ববিদ্যালয়ের কর্মকর্তা ও বঙ্গবন্ধু পরিষদ চবি শাখার সাধারণ সম্পাদক মশিউর রহমান হাটহাজারী থানায় আইসিটি আইনে মামলা করেন।

এতে উল্লেখ করা হয়, গত ২২ মে ফেসবুকে ‘অবশেষে জায়নামাজ কাত হয়ে পড়ে গেল’ লিখে নিবারণ বড়ুয়া একটি স্ট্যাটাস দেন। উক্ত স্ট্যাটাসের মধ্য দিয়ে নিবারণ বড়ুয়া ‘ধর্মীয় অনুভূতিতে আঘাত’ দিয়েছেন বলে অভিযোগ করা হয়েছে মামলায়।

এরপর সোমবার দুপুর ১টার দিকে বিশ্ববিদ্যালয় ক্যাম্পাস থেকে নিবারণকে উক্ত মামলায় গ্রেপ্তার করে হাটহাজারী থানা পুলিশ। নিবারণ বড়ুয়া বান্দরবানের লামা উপজেলার রাজবাড়ী গ্রামের মৃত সত্যবোধি বড়ুয়ার ছেলে। তিনি তৃতীয় শ্রেণীর কর্মচারী হিসেবে চবির হিসাব শাখায় ঊর্ধ্বতন সহকারী হিসেবে কর্মরত ছিলেন।

আর্কাইভ

সোম মঙ্গল বুধ বৃহ শুক্র শনি রবি
 
১০১১১২১৩১৪১৫১৬
১৭১৮১৯২০২১২২২৩
২৪২৫২৬২৭২৮২৯৩০
৩১  
গাজীপুরে ঈদেরদিন শিশু যুবক ও বৃদ্ধ সহ প্রায় ১০০০ মানুষের মাঝে খাবার ও বস্ত্র বিতরন করলেন মাসুদ রানা এরশাদ

Development by: webnewsdesign.com