সর্বশেষ সংবাদ

x



তেঁতুলিয়ায় মিথ্যা মামলা করে হয়রানির অভিযোগ

মঙ্গলবার, ১৫ সেপ্টেম্বর ২০২০ | ১:৫৩ অপরাহ্ণ | 27 বার

তেঁতুলিয়ায় মিথ্যা মামলা করে হয়রানির অভিযোগ
তেঁতুলিয়ায় মিথ্যা মামলা করে হয়রানির অভিযোগ

পঞ্চগড় জেলাধীন তেঁতুলিয়া উপজেলায় সত্য ঘটনা ধামাচাপা দিতে মিথ্যে মামলা দায়ের করে হয়রানি করার অভিযোগ উঠেছে। এমন অভিযোগ করেন উপজেলার বাংলাবান্ধা ইউনিয়নের দিঘলগাঁও(বাংলাবান্ধা) গ্রামের মৃত শনিবুল্লাহ’র ছেলে আহসান হাবীব। তিনি মিথ্যা হয়রানির মামলা থেকে অব্যাহতি ও ঘটনার ন্যায় বিচার দাবি করেন।
ভুক্তভোগী আহসান হাবীব বলেন, দীর্ঘদিন থেকে একই গ্রামের মৃত লফাব উদ্দিনের ছেলে জফির উদ্দীনের সাথে জমাজমি সংক্রান্ত বিরোধ চলে আসছে। এরই জেরে গত ১১ মে/২০২০ দুপুর আনুমানিক ২টায় হালিম উদ্দিন পিতা মৃত তছলিম উদ্দীন ও তাঁর লোকজন পরিকল্পনা অনুযায়ী ধারালো দেশীয় অস্ত্র নিয়ে জফির উদ্দীনের সিপাইপাড়া মৌজার জে.এল নং-০২ এর এস.এ খতিয়ান ৯০নং এর এস.এ ৪১২৩নং দাগের উত্তর-পূর্ব কোণে বাঁশঝাড়ে হামলা চালায়। হামলার সময় তারা সেখানে বিভিন্ন প্রজাতীর গাছপালা ব্যাপক ভাঙচুর এবং জফির উদ্দীনকে মারপিট করেন। তাদের বাঁধা দিতে গেলে হামলাকারীদের আঘাতে আরও বেশ কয়েকজন আহত হয়। তারা হলেন, সফিউল ইসলাম, সোহেল ও রবিউল সকলের পিতা- মৃত শনিবুল্লাহ, জামিল পিতা-আমিরুল হক, আমিরুল পিতা- সবাব উদ্দীনসহ আরো অনেকে। তিনি আরও জানান, সে ও তার ভাইয়েরা মিলে জফির উদ্দীনের কাছ থেকে সাব কবলায় গত ইং ১৩/১২/২০১৮ তারিখের ২৯৫০/১৮ নং দলিল, একই দাগ খতিয়ানে জফির উদ্দিন ও আব্দুল জব্বার এর কাছ থেকে গত গত ইং ০৫/০৩/২০১৯ তারিখের ৫৬৬/১৯ নং দলিল এবং জনাব আলীর কাছ থেকে গত ইং ১৮/০৬/২০১৯ তারিখের ১৭৬৭/১৯ নং দলিল মূলে খরিদ করে মালিকানা অর্জন করেন।
এ হামলার ঘটনায় ওই বাংলাবান্ধা ইউপি চেয়ারম্যান কুদরত-ই-খুদা মিলন জফির উদ্দীনকে আপোষ করে দেয়ার কথা বলে সময় কালক্ষেপন করায় জফির উদ্দীনের মেয়ে রেহেনা বেগম গত ১০ আগস্ট বাদিনী হয়ে কুদরত-ই-খুদা মিলনসহ ২১ জনকে আসামি করে বিজ্ঞ আমলী আদালত(৪), তেঁতুলিয়া, পঞ্চগড় এ একটি মামলা দায়ের করেন। কিন্তু হামলার মূল ঘটনায় অভিযুক্তদের আড়াল আর বাদী পক্ষকে হয়রানি করতে তাদের বিরুদ্ধে পাল্টা মিথ্যা মামলা দায়ের করেন হালিম উদ্দীন। সাজানো এ মিথ্যা মামলায় ভুক্তভোগী পরিবারের আহত ব্যক্তিরাসহ ৭ জনকে আসামি করা হয়।
এব্যাপারে বাদিনী রেহেনা বেগম জানান, আমার লোকদের উপর যে মামলাটি করা হয়েছে তা বর্তমান বাংলাবান্ধা ইউপি’র মিলন চেয়ারম্যানের জন্যই হয়েছে। তিনি আরও বলেন, মিলন চেয়ারম্যান আমাদেরকে আপোষ করার কথা বলে মামলার অভিযোগ থামিয়ে রেখে উল্টো আমার লোকদের ওপর সাজানো এ মিথ্যা মামলা করেছে। তিনি আরও বলেন, সে থানায় অভিযোগ দিতে গেলে থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা জহুরুল হক অভিযোগ গ্রহন না করে কোর্টে মামলা করতে বলেন। করোনা ভাইরাস মহামারিতে সুযোগের সন্ধানে পুলিশ ও মিলন চেয়ারম্যানের জোগসাজসে ভোগদখলীয় জমি অবৈধভাবে জবর দখল ও মিথ্যা মামলা করা হয়েছে।
মূলত মূল ঘটনাটি ধামাচাপা দিতেই তাদের বিরুদ্ধে মিথ্যা ও হয়রানির মামলা করা হয়েছে। ভুক্তভোগী পরিবারের বিরুদ্ধে করা হয়রানির মামলা প্রত্যাহার ও দোষীদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নিতে পুলিশের ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তাসহ আদালতের বিচারিক বিভাগের নিকট সুদৃষ্টি কামনা করেছেন।



আর্কাইভ

সোম মঙ্গল বুধ বৃহ শুক্র শনি রবি
 
১০১১১২১৩
১৪১৫১৬১৭১৮১৯২০
২১২২২৩২৪২৫২৬২৭
২৮২৯৩০  
“ইয়ুথ ব্লাড ডোনার ক্লাব”র দ্বিতীয় প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী উদযাপনের প্রস্তুতি মূলক সভা অনুষ্ঠিত

Development by: webnewsdesign.com