Recent News
ছেলের আবদারের গোলাপী সাইকেল চালানো দেখা হলোনা বাবার

এবারের ঈদে বাবার কাছে ঈদ কেনাকাটায় ছেলের আবদার ছিলো একটি গোলাপী সাইকেল । ঈদের ছুটিতে বাবা বাড়িতে আসার সময় একটি সাইকেল নিয়ে আসবে । ঈদের দিন বাড়ির সামনে ফাকা রাস্তায় সাইকেলে চড়ে সারাবাড়ি দাপিয়ে বেড়াবে এমনটি ছিলো বাবা ও ছেলের ইচ্ছে । সন্তানের কোন চাওয়া মানে পৃথিবীর সব কিছু একদিকে আর সন্তানের মুখের হাসি যেন সবকিছুকে হার মানিয়ে দেয়।

এমনই একটি দিনের অপেক্ষায় ছিলেন রাজধানীর নিমতলীর একটি কাগজের দোকানের কর্মচারী । কিন্তু শেষ ইচ্ছেটা আর পুরণ হলোনা ।

এমনই একটি ঘটনা সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ছড়িয়ে পরেছে ।সেই ঘটনার বিস্তারিত হুবহু পাঠকদের জন্য তুলেধরা হলোঃ-

এটা দেখে এত খারাপ লাগছে, কখন কার কোথায় জীবন থেমে যায়, কেও জানে না, ছোট্ট ছেলের আবদার ছিল তার বাবার কাছে। ঈদে বাড়ি আসার সময় তার জন্য সাইকেল কিনে আনতে হবে। বাবা নিমতলীর পেপার দোকানের সামান্য কর্মচারী। হোক সামান্য কর্মী কিন্তু ছেলের কাছে তো বাবা রাজা। মহাপুরুষ।

ঈদের বাড়তি পরিশ্রম, বোনাস আর হয়তো কিছু সঞ্চয় মিলিয়ে ছেলের জন্য কিনেছিলেন এই গোলাপী সাইকেল। তার রাজপুত্র যখন এই সাইকেলে চড়ে সারাবাড়ি দাপিয়ে বেড়াবে বাবার কাছে এরচেয়ে সুন্দর দৃশ্য আর কি হতে পারে ! চালাতে চালাতে রাজপুত্র বেল বাজাবে বাবা সরে গিয়ে হাসতে হাসতে জায়গা করে দেবে। মা বিরক্ত হয়ে কপট রাগ করবে হয়তো। সন্তান হাসবে। পৃথিবীর শ্রেষ্ঠ সেই হাসিমুখ।

বাবা মা দুজনেরই একসঙ্গে দেখার কথা ছিলো প্রিয় সন্তানের সেই হাসিমুখ।

কিন্তু মহান সৃষ্টিকর্তা সেটা চাননি বোধহয়। গতকাল ইফতার করে বাসায় ফেরার পর বুকে ব্যাথা ওঠে বাবার। তারপর স্ট্রোক। না ফেরার দেশে চলে যান বাবা।

আজ ভোর রাতের দিকে অ্যাম্বুলেন্সে ঠিকই বাসায় ফেরেন বাবা। গোলাপী সাইকেলটাও সঙ্গে। কিন্তু বাবার আর কখনোই দেখা হবে না সন্তান তার কিনে দিয়ে আসা সাইকেলে চড়ে কিভাবে হাসতে হাসতে গড়িয়ে পড়ছে।

(কপি পোস্ট)  Ammar’s Little Town ফেসবুক পেইজ থেকে

News Reporter

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *