জনপ্রিয় সংবাদ

x

ঈদ নিয়ে দুই ঘোষণা, প্রতিমন্ত্রী যা বললেন

বুধবার, ০৫ জুন ২০১৯ | ৫:২১ পূর্বাহ্ণ | 76 বার

ঈদ নিয়ে দুই ঘোষণা, প্রতিমন্ত্রী যা বললেন

মঙ্গলবার রাত ৯টার দিকে ইসলামিক ফাউন্ডেশনের বায়তুল মোকাররম সভাকক্ষে জাতীয় চাঁদ দেখা কমিটির প্রথম বৈঠকের পর জানানো হয় দেশের কোথাও চাঁদ দেখা যায়নি। তাই বৃহস্পতিবার ঈদ উদযাপনের সিদ্ধান্তের কথা জানানো হয়।

এর ঘণ্টা দুয়েক পর নতুন সিদ্ধান্তের কথা জানানো হয়।

বাংলাদেশের আকাশে শাওয়াল মাসের চাঁদ দেখা গেছে। ফলে বৃহস্পতিবার নয়, বুধবারই উদযাপিত হবে পবিত্র ঈদুল ফিতর। ধর্ম প্রতিমন্ত্রী শেখ মোহাম্মদ আবদুল্লাহ ইসলামিক ফাউন্ডেশনের বায়তুল মোকাররম সভাকক্ষে চাঁদ দেখা কমিটির দ্বিতীয় দফা বৈঠকের পর মঙ্গলবার রাত সোয়া ১১টার দিকে সাংবাদিকদের সামনে তিনি একথা জানান।

সিদ্ধান্ত পরিবর্তনের কথা জানিয়ে প্রতিমন্ত্রী আব্দুল্লাহ বলেন, ‘ইতিমধ্যে বিভিন্ন স্থানের সংশোধিত সংবাদ প্রাপ্তির মাধ্যমে জানা গেছে যে, আজকে সন্ধ্যায় বিভিন্ন জায়গায় বাংলাদেশের আকাশে পবিত্র ঈদুল ফিতরের চাঁদ দেখা গেছে। সে মতে বুধবার সারা দেশে ঈদুল ফিতর পালন করা হবে। ‘

গতকাল মঙ্গলবার সন্ধ্যায় দেড় ঘণ্টার বেশি সময় বৈঠক করে কেন বৃহস্পতিবার ঈদ উদযাপনের ঘোষণা দেওয়া হয়েছিল, সেই ব্যাখ্যা তুলে ধরেন তিনি।

প্রতিমন্ত্রী বলেন, ‌আপনারা জানেন বাংলাদেশ ইসলামিক ফাউন্ডেশনের অধীনে চাঁদ দেখা কমিটি আছে। সে কমিটিতে সংশ্লিষ্ট সকল দপ্তরের প্রধানরা আছেন।

এসব জেলা থেকে যতক্ষণ পর্যন্ত চাঁদ দেখার খবর পাইনি আমরা খবর নেওয়ার চেষ্টা করেছি। শুধু আমাদের সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তারা যে এই খবর নিয়েছেন তা নয়। আমাদের সঙ্গে দেশের বিভিন্ন জেলার যে মুফতিগণ থাকেন আমরা তাদেরকেও বলেছি, যেহেতু বিষয়টি কোরআন হাদিসের আলোকে এবং শরীয়ত মোতাবেক ঘটনা। এ ব্যাপারে আপনাদের দায়িত্ব প্রধান।

আপনাদেরকেও বিনীতভাবে অনুরোধ জানাচ্ছি, আপনারাও আপনাদের মতো বিভিন্ন এলাকা থেকে খোঁজ-খবর নেওয়ার চেষ্টা করেন এবং আমাদের ওলামায়ে কেরামগণ তাদের মতো করে খোঁজ-খবর নিয়েছেন।

এরপর তারা বিভিন্ন বড় বড় আলেমদের সঙ্গে যোগাযোগ করেন জানিয়ে শেখ আব্দুল্লাহ বলেন, ‘যেমন চরমোনাই পীর সাহেব হুজুররা উনারাও আমাদের সঙ্গে যোগাযোগ করেছেন, আমরা ও যোগাযোগ করেছি। চট্টগ্রাম অঞ্চলের বিখ্যাত জায়গায় আমাদের হাটহাজারী মাদরাসায় এলাকার সমস্ত মুফতি বসে মিটিং করেছেন। তাদের সঙ্গে আমরা যোগাযোগ করেছিলাম।

‘আমি নিজে মাওলানা শফী আহমদের (হেফাজত আমির) সঙ্গে যোগাযোগ করার পর তিনি যে সিদ্ধান্ত দিয়েছিলেন সেটা ছিল এ রকম- আমরা সারা দেশে খোঁজ-খবর নিয়ে জানতে পারলাম, এখন পর্যন্ত ঈদের চাঁদ কোথাও দেখা যায় নাই। ‘

প্রতিমন্ত্রী বলেন, ‘উনার (আহমদ শফী) সঙ্গে এবং সকল আলেম-ওলামাদের সঙ্গে যোগাযোগ করে আমরা ঘোষণাটা দিয়েছিলাম এবং সব জায়গায় তারাবির নামাজ হবে এ ঘোষণাও দিয়েছিলাম। ‘

রাত সোয়া ১০টা দিকে প্রথম চাঁদ দেখার খবর পান বলে জানান শেখ আব্দুল্লাহ।

‘মাওলানা মাহফুজুল হক সাহেব নামাজের পর আমাকে জানান যে, আমাদের সংশোধিত খবর আছে। তিনি এবং আরো কয়েকজন প্রধান মুফতি আমাদের জানান যে, আমরা চাঁদ দেখার খবর পেয়েছি এবং খবর পাওয়ার পর শরীয়ত মোতাবেক যেভাবে খোঁজ-খবর নেওয়া দরকার সেভাবে খোঁজ-খবর নিয়েছি। ‘

কুড়িগ্রাম ও লালমনিরহাটের জেলা প্রশাসক এবং পাটগ্রাম উপজেলার ইউএনওসহ সাতজন ব্যক্তির সরাসরি চাঁদ দেখার কথা তাদের জানিয়েছেন বলে প্রতিমন্ত্রী জানান।

তিনি বলেন, ‘শরীয়ত মোতাবেক দুজন ঈমানদার ব্যক্তি চাঁদ দেখার ঘোষণা দিলে শরীয়ত বলে সে ঘোষণা মেনে নেওয়া দরকার। কোনো ব্যক্তিগত স্বার্থে নয়, শরীয়ত মোতাবেক কোরআন এবং হাদিস অনুযায়ী যেটা কমিটির করা উচিত সেটাই আমরা আগে ঘোষণা দিয়েছিলাম।

আর বর্তমানে নতুন করে যে ঘোষণাটি দিচ্ছি সেটাও শরীয়ত মোতাবেক।

শ‌্যামপুর থানা ছাত্রলীগের যুগ্ন সাধারন সম্পাদক জালাল উদ্দিন

Development by: webnewsdesign.com