রবিবার ২রা অক্টোবর, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ | ১৭ই আশ্বিন, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

শিরোনাম >>
শিরোনাম >>

অর্থ সম্পদের কারণে ভাইয়ে ভাইয়ে কলহ!

নিজস্ব প্রতিবেদক   |   বৃহস্পতিবার, ২৫ আগস্ট ২০২২ | প্রিন্ট

অর্থ সম্পদের কারণে ভাইয়ে ভাইয়ে কলহ!

দিন দিন আমরা অমানুষ হয়ে যাচ্ছি। লোভ আমাদের আরো বেশি নির্দয় করে তুলেছে। মানুষের প্রয়োজন পূরণ হতে পারে কিন্তু লোভ কখনো পূরণ হয়না। একটি স্বর্ণের পাহাড় দেওয়া হলেও, মনের মধ্যে আর একটু আফসোস তৈরি হবে আরেকটি স্বর্ণের পাহাড় যদি আমার থাকত! আর এখনতো সামান্য কিছু অর্থ সম্পদের জন্য ভাইয়ে ভাইয়ে মারামারি হচ্ছে। একজন আরেকজনকে মেরে ফেলছে। কতটা মানসিক অসুস্থ হয়ে গেছি আমরা!

ধরে নিন, আপনাদের বাবা ৬ কাঠা জমির ওপর একটা বাড়ি করেছিলেন।আপনারা দুই ভাই। একসাথে বড় হয়েছেন, একসাথে আপনাদের মা হাতে তুলে খাইয়ে দিয়েছেন, একসাথে স্কুলে গিয়েছেন, কলেজে গিয়েছেন। এখন কি এমন হল যে, বাবার সেই ৬ কাঠা জমি ৩ কাঠা করে ভাগ করে নিয়ে দুইটা বাড়ি করে আলাদা থাকতে হচ্ছে, খেতে হচ্ছে?

কিংবা মনে করুন, আপনার বাবার ২ বিঘা চাষাবাদের জমি আছে। আপনারা দুই ভাই সেই জমির অংশীদার। শহরে থাকেন। গ্রামে কেউ নেই। আপনাদের জমি অন্যের কাছে বর্গা দিতে হয়। অথচ আপনারা একসাথে বর্গা না দিয়ে, যে যতটুকু জমি ভাগে পেয়েছেন, সে তার মত একেকজনকে জমি বর্গা দিয়ে দিচ্ছেন। আপনাদের জমি আইল দিয়ে আলাদা করে চাষ করা হচ্ছে। লেখাপড়া শিখে আপনারা কত বিবেকবান হয়েছেন, সেটাই এখন সকলকে দেখিয়ে দিচ্ছেন।

পার্থিব সম্পত্তির কারণে ভাইয়ে ভাইয়ে ভুল বোঝাবুঝি, মারামারি, জখম হবে, সেটা মেনে নেওয়া যায় না। অথচ সেটাই এখন হচ্ছে। ভাইদের সমস্যা সমাধানে এলাকায় সালিশ বসাতে হয়। ভাইদের নিজেদের ভুলের বিচার করে গ্রামের মাতুব্বর কিংবা পাড়ার ক্ষমতাশালী ব্যক্তিবর্গ।

ভাইয়ে ভাইয়ে বিবাদ হবে কেন? সামান্য স্বার্থের কারণে এক ভাই অন্যজনের মুখ দেখা বন্ধ করে দেয়। মনে হয়, মৃত্যুর পর কবরে নিয়ে যাবে স্বার্থ সংশ্লিষ্ট বিষয়াদি। একটু মেনে নেওয়ার ইচ্ছা যদি প্রতিটা ভাইয়ের মধ্যে থাকত, তবে কোন অপ্রীতিকর ঘটনা ঘটত না। কিছু যদি বেশি পায়, তবে সেটাতো আপনার ভাই পেল।

একটু মনে করার চেষ্টা করুন, ছোট থাকতে এক ভাই অন্যজনের গলা ধরে ঘুমিয়ে থাকতেন। তাহলে বড় হয়ে কেন পারছেন না, বুড়ো হয়ে কেন পারছেন না? সুখে দুঃখে সবচেয়ে কাছের বন্ধু কিন্তু আপনার ভাই।

খুব ছোট থাকতে দেখতাম, যাদের পিঠাপিঠি দুই/তিন ভাই থাকত, তাদের সাথে পাড়ার কেউ মারামারি করতে যেত না। কারণ কোন একজনকে মারলে, অন্য ভাইরা মিলে সেই ছেলেটিকে মারত। তবে সেসব মারামারি মারাত্মক কিছু ছিল না।

ভাইয়ের চেয়ে কেউ আপন হয় না। সম্পত্তির জন্য ভাইয়ের সাথে বিবাদে জড়াবেন না। সবসময় সম্পর্ক সেই আট-দশ বছর বয়সে যেমন ছিল,ঠিক সেই রকম রাখেন সারাজীবন। এক ভাই অন্য ভাইয়ের কাছে কখনো বড় হবেন না। ছোটদের মত দুষ্টুমি করুন। ভাইদের মধ্যে কোন মধ্যস্থকারী থাকতে দেবেন না। একজন অন্যজনকে বকা দেবেন, রাগারাগি করবেন, আবার একসাথে খেতে বসবেন। ভাইয়েরা এক থাকলে, পৃথিবী হাতের মুঠোয় থাকবে। কেউ চোখ রাঙিয়ে কথা বলার সাহস পাবে না।

~ রিয়াজুল হক, যুগ্ম পরিচালক, বাংলাদেশ ব্যাংক।

Facebook Comments Box
advertisement

Posted ২:২৮ অপরাহ্ণ | বৃহস্পতিবার, ২৫ আগস্ট ২০২২

dhakanewsexpress.com |

advertisement
advertisement
advertisement

এ বিভাগের আরও খবর

আর্কাইভ

শনি রবি সোম মঙ্গল বুধ বৃহ শুক্র
১০১১১২১৩১৪
১৫১৬১৭১৮১৯২০২১
২২২৩২৪২৫২৬২৭২৮
২৯৩০৩১  
মোঃ মাসুদ রানা হানিফ সম্পাদক