Rz Rasel
০ দিন পূর্বে
6:08 pm
ঠাকুরগাঁওয়ে পুলিশপত্নীর নগ্ন ছবি ইন্টারনেটে দেওয়ার ভয় দেখিয়ে ৫০ হাজার টাকার চাঁদা দাবি\ গ্রেফতার-৩
০ দিন পূর্বে
6:04 pm
সিন্ডিকেট মুক্ত ছাত্রলীগ হবে জাতিরজনকের প্রকৃত ছাত্রলীগ
২ দিন পূর্বে
6:05 pm
রাবিতে স্থগিতকৃত দশম সমাবর্তন মার্চে
৩ দিন পূর্বে
11:56 pm
‘মৃত্তিকা প্রতিবন্ধীবান্ধব সাংবাদিকতা অ্যাওয়ার্ড’ পেলেন ভৈরবের সুমন মোল্লা
৩ দিন পূর্বে
11:48 pm
ঢাকা আন্তর্জাতিক বাণিজ্য মেলা ২০১৮-এ অপো এফ ৫ বিজয়ীদের নাম ঘোষণা
৩ দিন পূর্বে
11:43 pm
মোরেলগঞ্জে,শরণখোলায় কমিউনিটি ক্লিনিক কর্মীদের তিন দিনব্যাপী অবস্থান কর্মসূচি
৩ দিন পূর্বে
11:39 pm
শ্রীমঙ্গলে জাতীয় শিক্ষা সপ্তাহের সমাপনী ও পুরস্কার বিতরণ
৩ দিন পূর্বে
11:28 pm
তানোরে স্কুল ছাত্রীর আত্মহত্যা
৩ দিন পূর্বে
11:23 pm
তানোরে শিশুদের শীতবস্ত্র বিতরণ করলেন বিভাগীয় কমিশনার
৩ দিন পূর্বে
11:16 pm
বৈষম্যহীন শিক্ষা ব্যবস্থা ও অসাম্প্রদায়িক,গণতান্ত্রিক দেশ গড়ার কারিগর ছিলেন শহীদ আসাদ
৩ দিন পূর্বে
10:53 pm
প্রেমিকের সঙ্গে শারীরিক সম্পর্ক ইনস্টাগ্রামে লাইভ, তারপর…
৩ দিন পূর্বে
8:09 pm
এই কলগার্লের জন্যই নাকি পদচ্যুত হয়েছিলেন প্রধানমন্ত্রী
৩ দিন পূর্বে
8:07 pm
২০ প্রেতাত্মার সঙ্গে ‘যৌন সম্পর্ক’ এই ব্রিটিশ যুবতীর!
৩ দিন পূর্বে
7:40 pm
অন্তরঙ্গ সময়ে টিভির নেশায় বুঁদ প্রেমিকা, ফলাফল…!
৩ দিন পূর্বে
5:58 pm
মা হচ্ছেন প্রীতি জিনতা!
৩ দিন পূর্বে
5:33 pm
খরচ বাঁচাতে ৮ জোড়া প্যান্ট ও ১০ জামা পরে বিমানবন্দরে যুবক
৩ দিন পূর্বে
5:22 pm
‘বিএনপির কোনো নীতি আদর্শ নেই’
৩ দিন পূর্বে
5:19 pm
যে ৮টি উপকারে আসতে পারে ফিটকিরি
৩ দিন পূর্বে
5:17 pm
অমিতাভ ও মাধুরীদের সারিতে সানি লিওন
৩ দিন পূর্বে
5:10 pm
ভারত বিরাটের ওপর অতিরিক্ত নির্ভরশীল : রাবাদা
৩ দিন পূর্বে
5:08 pm
অবশেষে ঢেকে দেওয়া হল দীপিকার উন্মুক্ত পেট (ভিডিও)
৩ দিন পূর্বে
5:05 pm
আসামে ভূমিকম্পের আঘাত
৩ দিন পূর্বে
5:00 pm
রেডিওতে বাংরেজি বন্ধের নির্দেশ দিলেন তারানা
৩ দিন পূর্বে
4:50 pm
চলন্ত গাড়ির জানালার বাইরে টপলেস নারী! হঠাৎ…
৩ দিন পূর্বে
4:46 pm
বিশ্বে প্রথমবারের মতো চালু হলো পুতুলের যৌনপল্লী!(ভিডিও)
হিরো আলমের দেশে!

চীনের নামকরা বিশ্ববিদ‍্যালয়গুলো কিছু সিম্পোজিয়াম আয়োজন করে। এগুলোর সাধারণ নাম হলো “ডিস্টিংগুইসড ইয়াং রিসার্চার ফোরাম”। নির্বাচিত তরুণ গবেষকদের তারা আমন্ত্রণ জানায়। সেখানে গিয়ে গবেষণা উপস্থাপন করতে হয়। তারপর উপযুক্তদেরকে সেখানে গবেষণা শুরুর জন‍্য প্রলুব্ধ করে। চীন দেশে সরাসরি এসোসিয়েট প্রফেসর (ক্ষেত্র বিশেষে প্রফেসর) হিসেবে নিয়োগ পাওয়া যায়। এর জন‍্য একমাত্র শর্ত হলো, ভালো বিশ্ববিদ‍্যালয় থেকে পিএইচডি/পোস্টডক থাকতে হবে। খুব ভালো মানের জার্নালে পাঁচ-ছয়টি (লিড অথারশিপ) আর্টিকেল থাকতে হবে। ভালো রিসার্চ প্রপোজাল জমা দিতে হবে। সেরকম সিম্পোজিয়ামে অংশগ্রহণ করার জন‍্য, তিনটি বিশ্ববিদ‍্যালয় সম্প্রতি আমাকে(লিখককে) আমন্ত্রণ জানিয়েছে। ইউনিভার্সিটিগুলো হলো জেইজিয়াং, Xi'an Jiaotong ও NPU। এনপিইউ’র ইনভাইটেশন ই-মেইল পাঠিয়েছে সেখানের লাইফ সাইন্স ফ‍্যাকাল্টির ডিন প্রফেসর Huaixing Cang। তিনি শুধু আমাকে আমন্ত্রণই জানাননি, একধাপ এগিয়ে তার বিশ্ববিদ‍্যালয়ে এসোসিয়েট প্রফেসর হিসেবে কাজ করার কথা বিবেচনা করতে বলেছেন। কথাগুলো বলার উদ্দেশ‍্য হলো, একটা দেশ তাদের শিক্ষা ও গবেষণাকে উত্তরোত্তর এগিয়ে নিতে কতো ধরণের প্রচেষ্টা চালাচ্ছে সেটার ইঙ্গিত দেয়া। আমরা যখন বলি ব্রেইন-ড্রেইন, তখন চীন চায় তার ছেলে-মেয়েরা দেশের বাহিরে এসে সর্বাধুনিক শিক্ষাটা নিক। সেইসব ছেলে-মেয়েদর মধ‍্য থেকে তারা বাছাই করে সেরা শিক্ষার্থীকে নিবে তাদের বিশ্ববিদ‍্যালয় ও গবেষণা প্রতিষ্ঠানগুলোর জন‍্য। দেশের তরুণদের ফিরয়ে নিতে, চীন দেশে বহু প্রকল্প চালু হয়েছে। উল্লেখযোগ‍্য একটি হলো—থাউজেন্ড ট‍্যালেন্ট প্ল‍্যান। প্রতি বছর, এক হাজার তরুণ গবেষককে বিদেশ থেকে ফিরিয়ে নেয়া হয়। সারা দেশে ছড়িয়ে ছিটিয়ে নিয়োগ দেয়া হয়। সেই গবেষকদের থাকে জবাবদিহিতা। একবার চাকুরি হলে, নিশ্চিন্তে সারা জীবন কাটিয়ে দিতে পারে না তারা। আমাদের দেশের কয়েক হাজার তরুণ গবেষক এশিয়া, ইউরোপ, আমেরিকায় কাজ করছে। আমাদের কোন বিশ্ববিদ‍্যালায় কিংবা গবেষণা প্রতিষ্ঠানে এমন কোন প্রকল্প নেই যেখানে তরুণরা আবেদন করতে পারবে। প্রচুর ছেলে-মেয়ে দেশে ফিরতে চায়। কিন্তু ফিরে কোথায় গিয়ে কাজ করবে? —গুলিস্তানে মালা বিক্রি করবে? অথচ, দেশে অহরহ প্রকল্প চালু হচ্ছে। শত শত কোটি টাকার প্রকল্পের ফলাফল বৃথা যাচ্ছে। সরকার আসে, সরকার যায়—টাকার হরিলুট ঠিকই হয়। এই হিরো আলমের দেশে তরুণরা রাজনীতি করে বেড়াচ্ছে। মন্ত্রীকে সংবর্ধনা দিয়ে বেড়াচ্ছে। রাজনীতি করে দেশ উদ্ধার করছে মহান শিক্ষক, বৈজ্ঞানিক কর্মকর্তা ও কর্মচারীরা। স্নাতক পাশ ছেলেটি এখন স্পিকার। যে ছেলেটি বিশ্ববিদ‍্যালয়ের সীমানা পেরুয়নি, সেও এখন অনুপ্রেরণার ফেরিওয়ালা। আদতে, সবাই হিরো আলম হয়ে যাচ্ছে! এদিকে, কারেন্ট এফেয়ার্স হাতে বারোশ ছাপ্পান্ন দিন ধরে অফিসার হওয়ার নেশায় মেধাটুকু ঢেলে দিচ্ছে দেশের সবচেয়ে মেধাবী তরুণ। সে হতে পারতো একজন থিউরেটিক‍্যাল ফিজিসিস্ট, একজন কেমিস্ট কিংবা জেনেটিক‍্যাল ইঞ্জিনিয়ার। তারই বা দোষ কী? সে কোথায় শিখবে গবেষণা? —ইউটিউবে? —ফেইসবুকে? —এগুলো দিয়ে হিরো আলম হওয়া যায়, সমাজে প্রকৃত জ্ঞান দেয়া যায় না। জ্ঞানী তৈরি করা যায় না। একজন মেধাবী তৈরি করতে প্রতিষ্ঠান লাগে। উপকরণ লাগে। উপযুক্ত লোক লাগে। সেগুলোর দিকে কী আমাদের কোন নজর আছে? আমরা বিশ্ববিদ‍্যালয় ও গবেষণা প্রতিষ্ঠানগুলোকে রুগ্ন করে রেখে, অনুপ্রেরণার ফেরি করতে পারবো ঠিকই, তাতে সমাজে বিপ্লব হবে না। বিপ্লব করবে চীন, কোরিয়া, ভারত। কারণ, জ্ঞানালয়কে ওরা রোগমুক্তি দিচ্ছে—সমাজে হাজারো সমস‍্যা থাকা সত্ত্বেও!

রাউফুল আলম কেমিস্ট, নিউইর্য়ক