Rz Rasel
০ দিন পূর্বে
5:12 pm
নীতিমালা লঙ্ঘন করে ফসলি জমিতে পুকুর খনন
০ দিন পূর্বে
5:11 pm
তানোরে পুলিশের নারী কেলেঙ্কারি, তোলপাড়!
০ দিন পূর্বে
5:03 pm
মুক্তির আগেই ইন্টারনেটে ফাঁস গুরলীনের বেডরুম দৃশ্য
০ দিন পূর্বে
5:02 pm
এবার সোশ্যাল মিডিয়ায় হট লুকে ক্যাটরিনা
০ দিন পূর্বে
4:47 pm
জাতীয় অনলাইন গণমাধ্যম সম্মেলনের সমাপনী
০ দিন পূর্বে
3:31 pm
জিয়া পরিবারকে নিয়ে প্রধানমন্ত্রীর বক্তব্য প্রত্যাহারের দাবি
০ দিন পূর্বে
2:29 pm
কুমিল্লায় নিয়ন্ত্রণ হারিয়ে গাছের সঙ্গে বাসের ধাক্কা: শিশুসহ নিহত ৪
০ দিন পূর্বে
12:01 am
মাঝারি থেকে ভারি বর্ষণের পূর্বাভাস সোমবার সকাল পর্যন্ত
১ দিন পূর্বে
9:53 pm
আইপিএল চলাকালীন সময় আন্তর্জাতিক ক্রিকেট বন্ধ রাখার প্রস্তাব ভারতের !
১ দিন পূর্বে
9:51 pm
কোয়ালিফায়ার ম্যাচে রিজার্ভ ডে না থাকায় ক্ষুব্ধ ক্রিকেটপ্রেমীরা !
১ দিন পূর্বে
9:28 pm
নিজ উদ্যোগেই কর দিচ্ছে কম বয়সীরা : অর্থমন্ত্রী
১ দিন পূর্বে
9:25 pm
সবাইকে নিয়মের কথা বলে নিজেই অনিয়ম করেন
১ দিন পূর্বে
9:19 pm
‘৯৯৯’ জরুরি সেবায় টোল ফ্রি সার্ভিস,উদ্বোধন করবেন জয়
১ দিন পূর্বে
9:18 pm
কলকাতায় ম্যারাডোনা
১ দিন পূর্বে
9:14 pm
মৌলিক অধিকার বাস্তবায়নের মাধ্যমে মানবাধিকার প্রতিষ্ঠা পাবে
১ দিন পূর্বে
9:04 pm
প্রেমের প্রস্তাব প্রত্যাখ্যান করায় কলেজ ছাত্রী ও বাবাকে মারধরের অভিযোগ,যুবক গ্রেফতার
১ দিন পূর্বে
8:57 pm
টেস্ট অধিনায়কত্ব হারালেন মুশফিক ; নতুন অধিনায়ক সাকিব
১ দিন পূর্বে
8:54 pm
বিমানে শ্লীলতাহানির শিকার ‘দঙ্গল কন্যা’ !
১ দিন পূর্বে
8:39 pm
ঢাকা-চট্টগ্রাম জেলা সিএনজি শ্রমিক ঐক্য পরিষদের ৮ দফা দাবিতে স্মারকলিপি পেশ
১ দিন পূর্বে
5:55 pm
বাংলাদেশ ইউনিভার্সিটির ব্যবসায় প্রশাসন বিভাগের নবীনবরণ ও বিদায় অনুষ্ঠান
১ দিন পূর্বে
5:49 pm
অপো এফ৫ ৬জিবি’র প্রি-বুকিং-এ আশাতীত সাফল্য
১ দিন পূর্বে
5:47 pm
আধূনিক বাগমারার রুপকার আবু হেনা পছন্দের শীর্ষে
১ দিন পূর্বে
5:43 pm
গোদাগাড়ীতে বিএসএফের গুলীতে দুই গরু ব্যবসায়ী নিহত
১ দিন পূর্বে
5:40 pm
লক্ষীপুরে মানবাধিকার দিবস পালিত
১ দিন পূর্বে
5:37 pm
আন্তর্জাতিক মানবাধিকার দিবসে সিরাজগঞ্জে জেলা বিএনপির মানববন্ধন
শপথ হউক দুর্নীতিমুক্ত বাংলাদেশ গড়ার

আলোকিত দেশ গড়তে আলোকিত মানুষ দরকার। আবার একটি রাষ্ট্র বা দফতর চালাতে হলে আলোকিত উদ্যমী,দক্ষ কর্মকর্তা এবং পূর্ণাঙ্গ ম্যানেজমেন্ট প্রয়োজন । আর সেই ম্যানেজমেন্ট যদি ভাল ও দুর্নীতিমুক্ত হয়, তবেই দেশ বা ওই দফতর সঠিকভাবে পরিচালিত হবে। ম্যানেজমেন্ট ভাল হলে দুর্নীতি ও অনিয়ম পদ্ধতিগতভাবে প্রতিহত করা সম্ভব।

সত্যিকারের আলোকিত রাজনৈতিক ব্যক্তিদের দ্বারা আলোকিত দেশ গড়া সম্ভব। একজন উদ্যমী, র্নীতিমুক্ত ও সাহসী মানুষই পারে আলোকিত দেশ উপহার দিতে। নতুবা আলোকিত বাংলাদেশ গড়া কখনোই সম্ভব নয়। দিন বদলাতে হলে তৃণমূল পর্যায়ে ব্যক্তি থেকে শুরু করে উপরস্ত কর্মকর্তার স্বভাব বদলাতে হবে। দিন বদল আপনাআপনি হবে না। যারা দুর্নীতি ‘দ’ করি না ঘোষনা দিয়েছেন তাদের আগে বদলাতে হবে। তাদের আদর্শ, নীতি, স্বভাবগত পরিবর্তন, গণতন্ত্রের ধারাকে গতিশীল করতে হবে।

বলা যেতে পারে, শিক্ষা, ভূমিসহ বিভিন্ন মন্ত্রণালয়ের আওতাধীন অফিসগুলো ঘুষ ছাড়া কোন কাজ হয় না। সম্প্রতি আমার এলাকায় অর্থাৎ নাঙ্গলকোট উপজেলার দৌলখাঁড় উচ্চ বিদ্যালয়ের ম্যানেজিং কমিটির শিক্ষানুরাগী সদস্য ও অত্র বিদ্যালয়ের প্রাক্তন ছাত্র সাংবাদিক জাহাঙ্গীর আলম তার ফেস বুক দেয়ালে দৌলখাঁড় উচ্চ বিদ্যালয়ে নাইটগার্ড, দপ্তরি ও শিক্ষক নিয়োগে বড় অংকের ঘুষ বাণিজ্যের অভিযোগ উত্থাপন করেছেন। সুতরাং এমন অভিজ্ঞতা অনেকেরই আছে যে, একটি বিদ্যালয়ের সহকারী শিক্ষক কিংবা নাইটগার্ড হিসেবে নিয়োগের ক্ষেত্রেও ঘুষ ছাড়া চাকরি জোটে না। শিক্ষা জাতির মেরুদন্ড- সেই শিক্ষা যদি ঘুষ দিয়ে চাকরি পান, তাহলে তিনি তো দুর্নীতির আশ্রয় নেবেনই। বিগত দিনেও আমরা দেখেছি, একটি সহকারী শিক্ষক পদে নিয়োগে ঘুষ বাণিজ্য হয়েছে। এ পদে ২০ লাখ টাকা দিয়েও চাকরি না পাওয়ার নজির রয়েছে। এমনকি কোন বিদ্যালয়ের শিক্ষকদের এক বিদ্যালয় থেকে অন্য বিদ্যালয়ে বদলি করতে গেলে সেখানেও উৎকোচ দিতে হয়। অন্যদিকে দেখা যায়, কেউ যদি ভ’মি অফিসে সহিমোহর,দলিল পর্চা বা মিউটেশন করতে যায়, ওই অফিসের পিয়ন থেকে শুরু করে উপরস্থ কর্মকর্তা পর্যন্ত উৎকোচ না পেলে কাজ করে না। পুলিশ বিভাগের কথা তো বলার অপেক্ষা রাখে না। যখন মানুষের কোন উপায়ান্তর থাকে না, তখন সঠিক বিচার পাওয়ার আশায় থানায় যায়। কিন্তু সেখানেও চলে টাকার খেলা। একটি মামলার চার্জসীট ও তদন্ত থেকে নাম কাটাতেও টাকা ছাড়া গত্যন্তর নেই। এমন সব সেক্টরে অনিয়ম-দুর্নীতি ও বৈষম্যই যেন তাদের আগলে রেখেছে। দুঃখজনক হলেও সত্য, দুনর্িিতর ধারক বাহক হল সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তারা। যতদিন সরকারী-বেসরকারী কর্মকর্তারা দুর্নীতি থেকে সরে না আসবে, ততদিন দেশ দুনর্িিতমুক্ত হবে না। অফিসের লোকদের ব্যবহারও কেমন হয়ে গেছে। সরকারী অফিসে গেলে টাকা ছাড়া কেউ ঠিকমতো আচার- আচরণ করে না। আমরা যদি অন্য কোন দেশের দিকে তাকাই তাহলে দেখা যাবে, সেখানে কোন অফিসে ঢুকলে সে যেই হোক না কেন, তাকে হাসিমুখে বসতে বলবে। সমস্যা শুনে যথাযথ ব্যবস্থা গ্রহণ করবে। আর আমাদের দেশে টাকা ছাড়া কথা বলাও যেন অন্যায়। সরকারের সব সেক্টরই অনিয়ম- বৈষম্য ও দুনর্িিতর দায়ে অভিযুক্ত। প্রতি বছরে টিআইবি’র প্রতিবেদনে দেখা যায় বিচার বিভাগ ,পুলিশ বিভাগ থেকে শুরু করে প্রায় কেউ-ই রেহাই পায়নি দুর্নীতির অভিযোগ থেকে । দুর্নীতির কারণে ক্ষতিগ্রস্থ হচ্ছে হাজার হাজার নীরিহ মানুষ। রাজনৈতিক দল ক্ষমতায় আসে পাঁচ বছরের জন্য। কিন্তু সরকারী কর্মকর্তাদের চাকরির মেয়াদ ২০-২৫ বছর পর্য়ন্ত বা তারও বেশী । কাজেই সরকার শত চেষ্টা করেও দেশকে দুর্নীতিমুক্ত করা সম্ভব নয়; যতদিন সরকারি-বেসরকারি কর্মকর্তারা নিজ উদ্যোগে দুর্নীতির বেড়াজাল থেকে বেরিয়ে না আসবে।

এখন সরকারি চাকরি যেন সোনার হরিণ। পিয়ন, চাপরাশি, পুলিশ,বর্ডার গার্ড, শিক্ষক, অফিস-সহকারী থেকে শুরু করে সব ক্ষেত্রে মানি ছাড়া পানি মেলে না। অর্থাৎ টাকা ছাড়া যেন সব অন্ধকার। টাকা দিলে মুখ বন্ধ ও খোলাও যায়। টাকা ছাড়া সরকারি- বেসরকারি চাকরির নাম মুখে আনা যায় না। এটি বর্তমানে রেওয়াজে পরিণত হয়েছে। এখানেই শেষ নয়; ওই টাকা সঠিক জায়গায় গেল কিনা সেটাও ভাবার বিষয়। আবার অনেকেই আছেন দালালদের খপ্পরে পড়ে সর্বস্ব হারিয়ে বসে। অনেকেই একটা চাকরি পাওয়ার আশায় হারিয়ে বসে বাপ-দাদার ভিটেমাটিও।

দেশের সবচেয়ে বিশ্বস্থ প্রতিষ্ঠান বিচার বিভাগেও নাকি দুর্নীতি বাসা বেঁধেছে। তাহলে মানুষ যাবে কোথায়? দিন বদলের সরকার গত ৯বছরে আইনশৃঙ্গলা নিয়েও প্রশ্নের সন্মূখীন হয়েছে। সরকারের ব্যর্থতা যেমন রয়েছে,তেমনি সফলতাও আছে। দীর্ঘ মেয়াদী প্রকল্পগুলো বাস্তবায়ন করতে একটু সময় তো লাগবেই। কারণ, বহু বছরের জঞ্চাল সহজে সরিয়ে ফেলা সম্ভব নয়। এক কদম আগালে পিছনের কদমের কথা ভাবতে হয়। অর্থাৎবিগত দিনের সফলতা-ব্যর্থতা বিবেচনা করেই সামনের দিকে অগ্রসর হতে হয়। তবে সফলতার টার্গেট থাকতে হয়। দিন বদলের সরকারের কাছে দৃষ্টান্ত চায় জনগণ। এ সরকারের এমন দৃষ্টান্ত স্থাপন করা উচিত যাতে সরকারি-বেসরকারি থেকে শুরু করে সব পর্যায়ে দুর্নীতি অনিয়ম ও বৈষম্য কমে আসে। সরকার আসে সরকার যায়, কিন্তু ভাগ্য বদলায় না। রক্তের বিনিময়ে দেশ স্বাধীন করেও তাদের আশা পূরণ হয়নি। বার বার তাদের আশা ভঙ্গ হয়। এবার তারা স্বাধীনতা স্ব-পক্ষের শক্তিকে ক্ষমতায় বসিয়েছে। তাই এ সরকার বিভিন্ন দফতরকে দুর্নীতিমুক্ত করবে । এটাই জনগণ চায়।

দেশের অধিকাংশ মানুষ বাস করে গ্রামাঞ্চলে। গ্রামগুলোর সমন্বয়ে গড়ে উঠে ইউনিয়ন অথবা পৌরসভা। পৌরসভা-ইউনিয়ন পরিষদ গ্রামের মানুষের সবচেয়ে কাছের সরকার। স্থানীয় পর্যায় থেকে সরকারকে স্বচ্ছতা ও জবাবদিহিতার আওতায় নিয়ে এলে তৃণমূল পর্যায়ের মানুষের প্রাপ্য অধিকার ও সুযোগ সুবিধা নিশ্চিত হতে পারে। এতে গনতন্ত্রের চর্চাও বেগবান হবে। অংশগ্রহণমূলক গনতান্ত্রিক প্রক্রিয়ার মাধ্যমে তৃণমূল পর্যায় থেকেই তৈরী হতে পারে গনতন্ত্রের শক্ত ভিত। একটি ইমারত পরিকল্পিতভাবে নির্মাণ শুরু না করলে এর ভিত মজবুত হয় না এবং বিশাল ইমারত নিজের পায়ে দাঁিড়য়ে থাকতে পারে না। তেমনি স্তানীয় পর্যায়ে দুর্নীতিমুক্ত ও শক্তিশালী গনতান্ত্রিক পদ্ধতিতেগড়ে না উঠলে ওপরের গনতান্ত্রিক কাঠামোও নড়বড়ে বা অস্থিতিশীল হতে বাধ্য। দেশে গনতান্ত্রিক কাঠামো শক্তিশালী করার প্রক্রিয়া তৃণমূল পর্যায় থেকে শুরু হলে সত্যিকারের গনতন্ত্র প্রতিষ্ঠা এবং দুর্নীতিমুক্ত দেশ গড়া সম্ভব।

লেখক : মো.শাহজাহান ভূঁইয়া, উপদেষ্টা সম্পাদক, সাপ্তাহিক আমাদের অধিকার ও সাবেক আহবায়ক, নাঙ্গলকোট উপজেলা স্বেচ্ছাসেবকলীগ