Rz Rasel
০ দিন পূর্বে
6:08 pm
ঠাকুরগাঁওয়ে পুলিশপত্নীর নগ্ন ছবি ইন্টারনেটে দেওয়ার ভয় দেখিয়ে ৫০ হাজার টাকার চাঁদা দাবি\ গ্রেফতার-৩
০ দিন পূর্বে
6:04 pm
সিন্ডিকেট মুক্ত ছাত্রলীগ হবে জাতিরজনকের প্রকৃত ছাত্রলীগ
২ দিন পূর্বে
6:05 pm
রাবিতে স্থগিতকৃত দশম সমাবর্তন মার্চে
৩ দিন পূর্বে
11:56 pm
‘মৃত্তিকা প্রতিবন্ধীবান্ধব সাংবাদিকতা অ্যাওয়ার্ড’ পেলেন ভৈরবের সুমন মোল্লা
৩ দিন পূর্বে
11:48 pm
ঢাকা আন্তর্জাতিক বাণিজ্য মেলা ২০১৮-এ অপো এফ ৫ বিজয়ীদের নাম ঘোষণা
৩ দিন পূর্বে
11:43 pm
মোরেলগঞ্জে,শরণখোলায় কমিউনিটি ক্লিনিক কর্মীদের তিন দিনব্যাপী অবস্থান কর্মসূচি
৩ দিন পূর্বে
11:39 pm
শ্রীমঙ্গলে জাতীয় শিক্ষা সপ্তাহের সমাপনী ও পুরস্কার বিতরণ
৩ দিন পূর্বে
11:28 pm
তানোরে স্কুল ছাত্রীর আত্মহত্যা
৩ দিন পূর্বে
11:23 pm
তানোরে শিশুদের শীতবস্ত্র বিতরণ করলেন বিভাগীয় কমিশনার
৩ দিন পূর্বে
11:16 pm
বৈষম্যহীন শিক্ষা ব্যবস্থা ও অসাম্প্রদায়িক,গণতান্ত্রিক দেশ গড়ার কারিগর ছিলেন শহীদ আসাদ
৩ দিন পূর্বে
10:53 pm
প্রেমিকের সঙ্গে শারীরিক সম্পর্ক ইনস্টাগ্রামে লাইভ, তারপর…
৩ দিন পূর্বে
8:09 pm
এই কলগার্লের জন্যই নাকি পদচ্যুত হয়েছিলেন প্রধানমন্ত্রী
৩ দিন পূর্বে
8:07 pm
২০ প্রেতাত্মার সঙ্গে ‘যৌন সম্পর্ক’ এই ব্রিটিশ যুবতীর!
৩ দিন পূর্বে
7:40 pm
অন্তরঙ্গ সময়ে টিভির নেশায় বুঁদ প্রেমিকা, ফলাফল…!
৩ দিন পূর্বে
5:58 pm
মা হচ্ছেন প্রীতি জিনতা!
৩ দিন পূর্বে
5:33 pm
খরচ বাঁচাতে ৮ জোড়া প্যান্ট ও ১০ জামা পরে বিমানবন্দরে যুবক
৩ দিন পূর্বে
5:22 pm
‘বিএনপির কোনো নীতি আদর্শ নেই’
৩ দিন পূর্বে
5:19 pm
যে ৮টি উপকারে আসতে পারে ফিটকিরি
৩ দিন পূর্বে
5:17 pm
অমিতাভ ও মাধুরীদের সারিতে সানি লিওন
৩ দিন পূর্বে
5:10 pm
ভারত বিরাটের ওপর অতিরিক্ত নির্ভরশীল : রাবাদা
৩ দিন পূর্বে
5:08 pm
অবশেষে ঢেকে দেওয়া হল দীপিকার উন্মুক্ত পেট (ভিডিও)
৩ দিন পূর্বে
5:05 pm
আসামে ভূমিকম্পের আঘাত
৩ দিন পূর্বে
5:00 pm
রেডিওতে বাংরেজি বন্ধের নির্দেশ দিলেন তারানা
৩ দিন পূর্বে
4:50 pm
চলন্ত গাড়ির জানালার বাইরে টপলেস নারী! হঠাৎ…
৩ দিন পূর্বে
4:46 pm
বিশ্বে প্রথমবারের মতো চালু হলো পুতুলের যৌনপল্লী!(ভিডিও)
বিলুপ্তপ্রায় চলচ্চিত্রটি যেভাবে উদ্ধার হলো

photo-1465369169 ১৯৫৮ সালে পাকিস্তানে নির্মিত হয়েছিল ছবিটি। অনেকেই মনে করেন, পাকিস্তানের অন্যতম সেরা চলচ্চিত্র এটি। শুধু পাকিস্তান নয়, এতে ছিল ভারত এবং তৎকালীন পূর্ব পাকিস্তানের (বর্তমান বাংলাদেশ) অংশগ্রহণও। কিন্তু নির্মাণের ৫৮ বছর পর প্রদর্শিত হয়েছে ছবিটি, প্রশংসা কুড়িয়েছে দর্শকের কাছ থেকে। এত দিন কেন মুক্তি পায়নি ছবিটি আর এত বছর পর কীভাবেই বা এটি জনসসমক্ষে এলো? ব্রিটিশ গণমাধ্যম বিবিসিতে সে খবরই বিস্তারিত জানিয়েছেন ফায়জাল খান। গত ১১ থেকে ২২ মে ফ্রান্সে অনুষ্ঠিত হয় ৬৯তম কান চলচ্চিত্র উৎসব। চলচ্চিত্র দুনিয়ার ঐতিহ্যবাহী এ উৎসবে প্রদর্শিত হয় পাকিস্তানের একটি দুর্লভ ছবি।  একরকম পুনরুদ্ধার করে চলচ্চিত্রটি দেখানো হয় ওই উৎসবে। উর্দু ভাষায় নির্মিত এই ছবির নাম ‘জাগো হুয়া সাভেরা’। এ চলচ্চিত্রটির সঙ্গে আরো প্রদর্শিত হয় রুশ নির্মাতা আন্দ্রেই তারকোভোস্কির ‘সোলারিস’, ফরাসি পরিচালক রেগিস ওয়ার্গনিয়ারের ‘ইন্দোচীন’ এবং মিসরীয় নির্মাতা ইউসেফ কাহিনের  ‘গুডবাই বোনাপার্তে’। ১৯৫০-এর দশকে জেলেদের গ্রামের পটভূমিতে নির্মিত ছবি ‘জাগো হুয়া সাভেরা’। চলচ্চিত্রটির নির্মাতা এ. জে. কার্দার ১৯৫৮ সালে এর নির্মাণকাজ শুরু করেন। চলচ্চিত্রটির সহকারী পরিচালক হিসেবে তাঁর সঙ্গে ছিলেন বাংলাদেশের (তৎকালীন পূর্ব পাকিস্তান) জহির রায়হান। সেই সময়টাতেই পাকিস্তানের রাজনৈতিক প্রেক্ষাপট বদলে যেতে থাকে। সামরিক অভ্যুত্থানের মাধ্যমে পাকিস্তানের ক্ষমতায় আসীন হন স্বৈরশাসক জেনারেল আইয়ুব খান। স্নায়ুযুদ্ধের সেই সময়ে যুক্তরাষ্ট্রকে সমর্থন দিচ্ছিল পাকিস্তান। সেই পটভূমিতে ছবিটির ভাগ্যে কী ঘটেছিল, সেটাই জানান ছবিটির প্রযোজক নোমান তাসীরের ছেলে আনজুম তাসীর। নোমান তাসীর মারা যান ১৯৯৬ সালে। সম্প্রতি তাঁর ছেলে আনজুম তাসীর বিবিসিকে বলেন, ‘ছবিটি মুক্তির তিন দিন আগে সরকারের পক্ষ থেকে আমার বাবাকে বলা হয়, ছবিটি নিয়ে আর না আগানোর জন্য। অভিযোগ ছিল, ছবিটির তরুণ অভিনেতা-অভিনেত্রী ও চিত্রনাট্যকার সবাই ছিলেন কমিউনিস্ট।’ ছবিটির চিত্রনাট্য, সংলাপ ও গানের কথা লিখেছিলেন ফয়েজ আহমদ ফয়েজ। তাঁর মেয়ে সালিমা হাশমি বলেন, ‘ ছবিটি যেন মুক্তি দেওয়া না হয়, সে জন্য জেনারেল আইয়ুব খান আমার বাবাকে অবরুদ্ধ করে রাখেন।’ তারপরও ছবিটি মুক্তি দিতে চেষ্টা করেছিলেন এর সঙ্গে সংশ্লিষ্টরা। চেষ্টা করা হয় লন্ডনে ছবিটির প্রিমিয়ার অনুষ্ঠানের। কিন্তু সামরিক সরকার লন্ডনের পাকিস্তান হাইকমিশনকে সেই প্রিমিয়ার অনুষ্ঠান বয়কটের নির্দেশ দেয়। ‘তবে লন্ডনে নিযুক্ত তৎকালীন পাকিস্তানের হাইকমিশনার ও তাঁর স্ত্রী সরকারের এ আদেশ মানেননি, বলেন আনজুম তাসীর। ‘জাগো হুয়া সাভেরা’ নির্মিত হয়েছিল নব্য বাস্তববাদী ঘরানার দ্বারা অনুপ্রাণিত হয়ে। সত্যজিৎ রায়ের ‘পথের পাঁচালী’ ছবিটিও নব্য বাস্তববাদী সিনেমার উদাহরণ। ইতালির চলচ্চিত্র নির্মাতা লুচিনো ভিসকোন্তি ও ভিত্তোরিও দো সিকা ছিলেন এই নব্য বাস্তববাদী ঘরানার পথিকৃৎ। সাদাকালো এই ছবিটির দৃশ্যধারণ করা হয় বাংলাদেশের (তৎকালীন পূর্ব পাকিস্তান) মেঘনা নদীর তীরবর্তী এলাকায়। ঢাকার পার্শ্ববর্তী একটি গ্রামের জেলে সম্প্রদায়ের জীবনসংগ্রাম তুলে ধরা হয় ছবিটিতে। মহাজনদের দেওয়া ঋণের টাকায় চলতে হয় তাদের। সেই ঋণ চক্রাকারে চলতেই থাকে। এ থেকে যেন আর মুক্তি নেই জেলেদের। দেশভাগের ১০ বছর পরে নির্মিত হলেও এই ছবিটিতে পাকিস্তান ও ভারতের কলাকুশলীরা মিলে কাজ করেছিলেন, যা ছিল বিরল ঘটনা। বিখ্যাত বাঙালি লেখক মানিক বন্দ্যোপাধ্যায়ের একটি উপন্যাস থেকে অনুপ্রাণিত হয়ে ছবিটির চিত্রনাট্য লিখেছিলেন পাকিস্তানের বিখ্যাত কবি ফয়েজ আহমদ। ছবিটির সংগীত পরিচালনা করেন ভারতীয় সংগীত পরিচালক তিমির বরণ। ছবিটির একমাত্র পেশাদার অভিনেত্রী ছিলেন তৃপ্তি মিত্র, যিনি ছিলেন একজন ভারতীয় বাঙালি। তৃপ্তি মিত্র ও তাঁর স্বামী শম্ভু মিত্র দুজনেই ছিলেন বাম ঘরানার ভারতীয় গণনাট্য সংঘের সদস্য। ১৯৪০-এর দশকে এই নাট্যসংগঠনটি যাত্রা শুরু করেছিল। ফয়েজ, বরণ, তৃপ্তি তো ছিলেনই, সঙ্গে যোগ দেন ব্রিটিশ চিত্রগ্রাহক ওয়াল্টার লাসালি। পরে ১৯৬৪ সালে ‘জোরবা দ্য গ্রিক’ ছবির জন্য অস্কার জিতেছিলেন তিনি। ছবিটি নির্মাণের জন্য যে প্রস্তুতি ও নির্মাণ প্রক্রিয়া, তা ছিল দারুণ আধুনিক। সে সঙ্গে ছবির প্রচারও ছিল ভালো। বিশেষ করে সরকারি বাধার কারণে সে সময়ে ছবিটির প্রতি দর্শকের আগ্রহ সৃষ্টি হয়েছিল। তাই সে সময় মুক্তি পেলে ছবিটির সাফল্য ছিল নিশ্চিত। কিন্তু ছবিটি কোনোভাবেই মুক্তি দেওয়া যায়নি। আর এ বাধার কারণে ছবিটি রয়ে যায় আড়ালে। এমনকি কয়েক বছর পর নির্মাতারাও ছবিটির কথা ভুলে যান। পরবর্তী অর্ধশতক ছবিটি নিয়ে কোনো আলোচনাই হয়নি। ৫০ বছর পর ছবিটিকে আলোচনায় নিয়ে আসেন দুই ফরাসি ভাই ফিলিপ ও আলাঁ জালাদ্যু। তিন মহাদেশের ছবি নিয়ে ফ্রান্সের নান্তে একটি চলচ্চিত্র উৎসব আয়োজন করেন তাঁরা। ২০০৭ সালে পাকিস্তানি ছবির রেট্রোস্পেকটিভ আয়োজন করতে চাইছিলেন দুই ভাই। ফিলিপ জালাদ্যু বলেন, “আমরা যখন উদ্যোগটি গ্রহণ করি, তখন পাকিস্তানের প্রামাণ্যচিত্র নির্মাতা ও লাহোরের ন্যাশনাল কলেজ অব আর্টসের চলচ্চিত্র বিভাগের প্রধান শিরীন পাশা বলেন, ‘জাগো হুয়া সাভেরা’ ছাড়া কোনো পাকিস্তানি ছবির রেট্রোস্পেকটিভ হওয়া সম্ভব নয়।” আর এই কথা শুনে ছবিটির প্রিন্টের খোঁজে লেগে পড়েন দুই ভাই। আর এই কাজে সাহায্য করেন আনজুম তাসীর। শুরু হয় পাকিস্তান ও বাংলাদেশে ছবিটির প্রিন্ট খোঁজার পালা। খোঁজা হয় ভারতের পশ্চিমাঞ্চলীয় শহর পুনের ফিল্ম আর্কাইভ, লন্ডন ও প্যারিসে। ফ্রান্সে চলচ্চিত্র উৎসব শুরুর মাত্র এক সপ্তাহ আগে এক ফরাসি পরিবেশকের কাছ থেকে ‘জাগো হুয়া সাভেরা’ ছবিটির একটি প্রিন্ট উদ্ধার করেন আনজুম তাসীর।  সেই প্রিন্টেরও কিছু অংশ ছিল লন্ডনে আর কিছু ছিল করাচিতে। এসব অংশ জোড়া দিয়ে মোটামুটি দেখার মতো এক প্রিন্ট তৈরি করেন তারা এবং সেটা নান্তেসের উৎসবে প্রদর্শিত হয়। এরপর ছবিটি সঠিকভাবে পুনরুদ্ধারের কাজ শুরু করেন তাসীর। ভারতের চেন্নাইয়ের এক ল্যাবে ছবির প্রিন্টটি পাঠিয়ে দেন। কিন্তু সেটা ভারতের কাস্টমস কর্তৃপক্ষ ছাড় করতেই ছয় মাস সময় নেয়। এ কারণে ক্ষিপ্ত হয়ে ২০০৮ সালে তাসীর ছবির প্রিন্টটি নিয়ে চলে যান লন্ডনে। দুই বছর পর ২০১০ সালে ছবিটির নতুন প্রিন্ট হাতে পান তাসীর। ছবিটিতে জেলে কাসিমের চরিত্রে অভিনয় করেন বাংলাদেশের (তৎকালীন পূর্ব পাকিস্তান) খান আতাউর রহমান। ছবিতে দেখা যায় মহাজনদের ঋণচক্রের বিরুদ্ধে রুখে দাঁড়ায় কাসিম। এ বছরের ১৫ মে আনজুম তাসীর, সালিমা হাশমি ও ফিলিপ জালাদ্যু মিলে কান চলচ্চিত্র উৎসবে ছবিটির প্রদর্শনী করেন। বুনুয়েল থিয়েটারে প্রদর্শিত হয় ছবিটি। কিন্তু তাঁদের অক্লান্ত পরিশ্রমের কোনো ফল তাঁরা পাননি। বুনুয়েল থিয়েটার হলের অর্ধেকটাই ছিল ফাঁকা। সেখানে কোনো পাকিস্তানি চলচ্চিত্র সমালোচক ছিলেন না, ছিলেন গোট চারেক ভারতীয় সাংবাদিক। তবে হাল ছেড়ে দেওয়ার পাত্র নন তাসীর। বিবিসিকে তাসীর বলেন, ‘অর্ধশতক পরে এসে আজকের দর্শক হয়তো ছবিটিকে সেভাবে গ্রহণ করবে না। কিন্তু ছবির প্রেক্ষাপট আজও সমসাময়িক। জেলেরা এখন মোবাইল ব্যবহার করছে কিন্তু সেই ঋণের চক্র থেকে এখনো তাদের মুক্তি মেলেনি। আমি ছবিটা পাকিস্তান, ভারত ও বাংলাদেশে প্রদর্শন করতে চাই। এই তিন দেশের মানুষের সম্মিলিত প্রচেষ্টায় ছবিটি নির্মিত হয়েছিল।’