Rz Rasel
০ দিন পূর্বে
6:08 pm
ঠাকুরগাঁওয়ে পুলিশপত্নীর নগ্ন ছবি ইন্টারনেটে দেওয়ার ভয় দেখিয়ে ৫০ হাজার টাকার চাঁদা দাবি\ গ্রেফতার-৩
০ দিন পূর্বে
6:04 pm
সিন্ডিকেট মুক্ত ছাত্রলীগ হবে জাতিরজনকের প্রকৃত ছাত্রলীগ
২ দিন পূর্বে
6:05 pm
রাবিতে স্থগিতকৃত দশম সমাবর্তন মার্চে
৩ দিন পূর্বে
11:56 pm
‘মৃত্তিকা প্রতিবন্ধীবান্ধব সাংবাদিকতা অ্যাওয়ার্ড’ পেলেন ভৈরবের সুমন মোল্লা
৩ দিন পূর্বে
11:48 pm
ঢাকা আন্তর্জাতিক বাণিজ্য মেলা ২০১৮-এ অপো এফ ৫ বিজয়ীদের নাম ঘোষণা
৩ দিন পূর্বে
11:43 pm
মোরেলগঞ্জে,শরণখোলায় কমিউনিটি ক্লিনিক কর্মীদের তিন দিনব্যাপী অবস্থান কর্মসূচি
৩ দিন পূর্বে
11:39 pm
শ্রীমঙ্গলে জাতীয় শিক্ষা সপ্তাহের সমাপনী ও পুরস্কার বিতরণ
৩ দিন পূর্বে
11:28 pm
তানোরে স্কুল ছাত্রীর আত্মহত্যা
৩ দিন পূর্বে
11:23 pm
তানোরে শিশুদের শীতবস্ত্র বিতরণ করলেন বিভাগীয় কমিশনার
৩ দিন পূর্বে
11:16 pm
বৈষম্যহীন শিক্ষা ব্যবস্থা ও অসাম্প্রদায়িক,গণতান্ত্রিক দেশ গড়ার কারিগর ছিলেন শহীদ আসাদ
৩ দিন পূর্বে
10:53 pm
প্রেমিকের সঙ্গে শারীরিক সম্পর্ক ইনস্টাগ্রামে লাইভ, তারপর…
৩ দিন পূর্বে
8:09 pm
এই কলগার্লের জন্যই নাকি পদচ্যুত হয়েছিলেন প্রধানমন্ত্রী
৩ দিন পূর্বে
8:07 pm
২০ প্রেতাত্মার সঙ্গে ‘যৌন সম্পর্ক’ এই ব্রিটিশ যুবতীর!
৩ দিন পূর্বে
7:40 pm
অন্তরঙ্গ সময়ে টিভির নেশায় বুঁদ প্রেমিকা, ফলাফল…!
৩ দিন পূর্বে
5:58 pm
মা হচ্ছেন প্রীতি জিনতা!
৩ দিন পূর্বে
5:33 pm
খরচ বাঁচাতে ৮ জোড়া প্যান্ট ও ১০ জামা পরে বিমানবন্দরে যুবক
৩ দিন পূর্বে
5:22 pm
‘বিএনপির কোনো নীতি আদর্শ নেই’
৩ দিন পূর্বে
5:19 pm
যে ৮টি উপকারে আসতে পারে ফিটকিরি
৩ দিন পূর্বে
5:17 pm
অমিতাভ ও মাধুরীদের সারিতে সানি লিওন
৩ দিন পূর্বে
5:10 pm
ভারত বিরাটের ওপর অতিরিক্ত নির্ভরশীল : রাবাদা
৩ দিন পূর্বে
5:08 pm
অবশেষে ঢেকে দেওয়া হল দীপিকার উন্মুক্ত পেট (ভিডিও)
৩ দিন পূর্বে
5:05 pm
আসামে ভূমিকম্পের আঘাত
৩ দিন পূর্বে
5:00 pm
রেডিওতে বাংরেজি বন্ধের নির্দেশ দিলেন তারানা
৩ দিন পূর্বে
4:50 pm
চলন্ত গাড়ির জানালার বাইরে টপলেস নারী! হঠাৎ…
৩ দিন পূর্বে
4:46 pm
বিশ্বে প্রথমবারের মতো চালু হলো পুতুলের যৌনপল্লী!(ভিডিও)
মহান প্রভুর করুণা অফুরান

photo-1465285784 পূর্ণ একটি বছরের দীর্ঘ পরিক্রমা অতিক্রম করে আবার এলো মাহে রমজান। মুমিন বান্দার জন্য মহান আল্লাহর অফুরন্ত করুণার সওগাত নিয়ে এলো মাহে রমজান। গণনার ধারাবাহিকতায় মাসটি হিজরি বর্ষপঞ্জির নবম মাস হলেও পবিত্র কোরআন নাজিলের মাস হিসেবে, হজরত মুহাম্মদ (স.)-এর রেসালাতপ্রাপ্তির মাস হিসেবে এর গুরুত্ব ও ফজিলত অন্যান্য ১১ মাস অপেক্ষা অনেক বেশি। ৬১০ খ্রিস্টাব্দে হেরা পর্বতের এক নিভৃত গুহায় মাহে রমজানের কদরের রাতে ঐশী প্রত্যাদেশপ্রাপ্তির মাধ্যমে মহানবীর জীবনে রেসালাতের সূচনা হয়। আর এর মাধ্যমেই আরম্ভ হয় মানবজীবনের একমাত্র পূর্ণাঙ্গ জীবনবিধান আল-কোরআন নাজিলের ধারাবাহিকতা। অতঃপর কেটে যায় ১২টি বছর। দ্বিতীয় হিজরি শাবান মাসের ১০ তারিখে মাহে রমজানের শ্রেষ্ঠ উপহার হিসেবে মহান আল্লাহ মুমিন বান্দার ওপর রোজার বিধান সম্বলিত আয়াত নাজিল করেন। এরশাদ হয়েছে : রমজান হলো সে মাস, যাতে কোরআন নাজিল করা হয়েছে। তা হলো মানুষের জন্য হেদায়েতের পথনির্দেশিকা এবং সত্য-মিথ্যার মানদণ্ড। সুতরাং তোমাদের মধ্যে যে মাসটি প্রাপ্ত হবে, সে অবশ্যই তাতে রোজা রাখবে। আর যে অসুস্থ হবে বা সফরে থাকবে সে অন্য দিনগুলোতে তা পূরণ করে নেবে। আল্লাহ তোমাদের জীবনকে সহজ করে দিতে চান, তোমাদের ওপর কঠোরতা আরোপ করতে চান না। (সুরা আল-বাক্বারা : ১৮৫ ) উদ্ধৃত আয়াতের শেষাংশে মহান আল্লাহ রোজার বিধান আরোপের উদ্দেশ্য সম্পর্কে বলেছেন, এর দ্বারা তিনি বান্দার জীবনকে সহজ ও স্বাচ্ছন্দ্যপূর্ণ করতে চান। বিষয়টি অত্যন্ত গভীরভাবে ভাবার বিষয়। কারণ রোজার বিধান পালনের বাহ্যিক অনুশীলন হলো, সুবেহ সাদিক থেকে সূর্যাস্ত পর্যন্ত পূর্ণ দিবস খাদ্য, পানীয় ও যৌনতা বর্জন করে চলা। সঙ্গে থাকছে আরো কিছু বিধি-নিষেধ, যা বাহ্যত জীবনযাত্রায় কঠোরতা আরোপেরই শামিল। তাহলে রোজা জীবনকে স্বাচ্ছন্দ্যপূর্ণ করে কীভাবে। আসলে বাহ্যিক বিষয়াদি বিবেচনায় সব ক্ষেত্রে মৌলিক বিষয়ের সন্ধান পাওয়া যায় না। কোনো কোনো ক্ষেত্রে তাত্ত্বিক অনুসন্ধান ছাড়া বস্তুর স্বরূপ খুঁজে পাওয়া সম্ভব নয়। বস্তুত রোজা বাহ্যিক ইবাদত হওয়ার সঙ্গে সঙ্গে একটি উচ্চপর্যায়ের আত্মিক ও আদর্শিক অনুশীলন। রোজার মাধ্যমে মুমিনের আত্মা পাপমুক্ত হয়, বান্দা মহান আল্লাহর একান্ত সান্নিধ্য অর্জন করে। এরশাদ হয়েছে : (হে নবী !) যখন আমার বান্দাগণ তোমার নিকট আমার সম্পর্কে জিজ্ঞাসা করে তখন তুমি বলে দাও , আমি তাদের খুব নিকটে রয়েছি। যখনই কোনো আহ্বানকারী আমাকে আহ্বান করে আমি তার আহ্বানে সাড়া দিই। সুতরাং তাদের উচিত আমার আহ্বানে সাড়া দেওয়া এবং আমার ওপর বিশ্বাস রাখা। নিশ্চয়ই তারা সুপথপ্রাপ্ত হবে। (সুরা আল-বাক্বারা :১৮৬) মহান আল্লাহ রোজার নৈতিক ও আদর্শিক শিক্ষার মাধ্যমে জীবনধারাকে হেদায়েতে ওপর প্রতিষ্ঠিত করে স্বাচ্ছন্দ্যপূর্ণ করতে চান। সমগ্র রমজান মাসটিই মহান আল্লাহর বিশেষ করুনায় পূর্ণ। হজরত আবু হুরায়রা (রা.) হতে বর্ণিত তিনি বলেন, রাসুলুল্লাহ (স.) বলেছেন: যখন রমজান মাসের প্রথম রাত শুরু হয় তখন শয়তান ও দুষ্টু প্রকৃতির জিনদেরকে বন্দি করে ফেলা হয়। আর জাহান্নামের দরজাগুলো বন্ধ করে দেওয়া হয়, অতঃপর তার একটা দরজাও আর খোলা হয় না এবং জান্নাতের দরজাসমূহ খুলে দেওয়া হয়। অতঃপর তার একটা দরজাও আর বন্ধ করা হয় না। আর একজন ঘোষক অনবরত ঘোষণা করতে ‘থাকে হে সৎ কর্মপরায়ণ! তুমি দ্রুত অগ্রসর হও আর হে পাপাচারী! তুমি নিবৃত হও। আর রমজানের প্রত্যেক রাত্রিতে মহান আল্লাহ অসংখ্য জাহান্নামিকে মুক্তি দান করেন। (সহীহ ইবনে হিব্বান, খণ্ড : ৮, পৃষ্ঠা : ২২২) রমজান মাসে মহান আল্লাহ বান্দার আমলের সওয়াবও বহুগুণ বাড়িয়ে দেন। হজরত সালমান ফারসি (রা.) হইতে বর্ণিত, এক হাদিসে রাসুলুল্লাহ (সা.) বলেছেন : যে ব্যক্তি এ মাসে কোনো নফল আমলের মাধ্যমে মহান আল্লাহর সান্নিধ্য কামনা করবে, তার সওয়াব ওই ব্যক্তির মতো যে অন্য সময়ে একটি ফরজ আদায় করল। আর যে এ মাসে একটি ফরজ আমল করবে, তার সওয়াব হবে অন্য সময়ে সত্তরটি ফরজ আদায়ের সমান। (তাফসিরে বাগবি, খণ্ড : ১, পৃষ্ঠা : ২২৩) রাসুলুল্লাহ (স.) মহান আল্লাহর বিশেষ করুনায় ধন্য হওয়ার সার্থক পথপরিক্রমা নির্দেশ করতে গিয়ে রমজান মাসকে তিনটি দশকে ভাগ করেছেন। তিনি বলেছেন : এটি এমন একটি মাস, যার প্রথম দশক রহমতের আর দ্বিতীয় দশক মাগফিরাতের এবং তৃতীয় দশক জান্নাম থেকে মুক্তির জন্য। (সহিহ ইবনে খুজাইমা, খণ্ড : ৩, পৃষ্ঠা : ১৯১ , হাদিস : ১৮৮৭) আল্লাহ রাব্বুল আলামীন আমাদের সবাইকে রমজান ১৪৩৭-এর এই রহমতের দশকে তাঁর বিশেষ করুনা লাভের তাওফিক দান করুন! লেখক : পেশ ইমাম ও খতীব, রাজশাহী কলেজ কেন্দ্রীয় মসজিদ।