Rz Rasel
০ দিন পূর্বে
10:46 pm
কুমিল্লার সবচেয়ে ঝুঁকিপূর্ণ সড়ক টমছম ব্রিজ টু কোটবাড়ি!
০ দিন পূর্বে
10:42 pm
কুমিল্লা মহানগর জামায়াত আমীর গ্রেপ্তারের প্রতিবাদে বিক্ষোভ
০ দিন পূর্বে
9:56 pm
থেমে নেই নাঙ্গলকোট থানা পুলিশের গ্রেফতার বাণিজ্য!
০ দিন পূর্বে
6:01 pm
দুদকের মামলায় বগুড়ায় লতিফ সিদ্দিকী
০ দিন পূর্বে
5:58 pm
অধিনায়ক কোহলি হলেও মাঠের নেতা ধোনি!
০ দিন পূর্বে
5:57 pm
মেসির চোখে রোনালদোর চেয়ে এগিয়ে নেইমার!
০ দিন পূর্বে
5:46 pm
উসমানের বোলিং তোপে লণ্ডভণ্ড শ্রীলঙ্কা
০ দিন পূর্বে
5:45 pm
আবার শিরোনামে গেইল
০ দিন পূর্বে
5:42 pm
কূটনৈতিকভাবেই সব সমস্যা মোকাবেলা করব: প্রধানমন্ত্রী
০ দিন পূর্বে
5:40 pm
শেরপুরে নব্য জেএমবি সদস্য ৫ দিনের রিমান্ডে
০ দিন পূর্বে
5:36 pm
আইএস মুক্ত হলো ফিলিপাইনের মারাওয়ি, ৯২০ জঙ্গি নিহত
০ দিন পূর্বে
5:33 pm
কক্সবাজারের সাংবাদিকের উপর হামলার প্রতিবাদে ঝিনাইদহে মানববন্ধন
০ দিন পূর্বে
5:31 pm
ঝিনাইদহে জেলা ব্র্যান্ডিং, কিশোর বাতায়ন প্রতিযোগীতা বিষয়ে তথ্য অফিসের সংবাদ সম্মেলন
০ দিন পূর্বে
5:28 pm
ঝিনাইদহে জাতীয় স্যানিটেশন মাস অক্টোবর ও বিশ্ব হাত ধোয়া দিবস পালিত
০ দিন পূর্বে
5:19 pm
রিয়ালের টানা দ্বিতীয় জয়
০ দিন পূর্বে
5:17 pm
ইউরোপের ‘গোল্ডেনবয়’ এমবাপো
০ দিন পূর্বে
5:13 pm
চুনারুঘাটে আহম্মদাবাদ ইউনিয়নের সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় পরিদর্শন করেন, ড. নাজমানারা খানম
০ দিন পূর্বে
5:09 pm
লক্ষীপুরে জেলা ব্র্যার্ন্ডি ও কিশোর বাতায়ন বিষয়ক প্রেস ব্রিফিং
০ দিন পূর্বে
4:59 pm
গোটা বিশ্বে কার কত পরমাণু অস্ত্রের মজুদ রয়েছে!
০ দিন পূর্বে
4:56 pm
মাদার মেরির ছবিতে মিয়া খলিফা, ইন্সটাগ্রামে বিতর্ক
০ দিন পূর্বে
4:47 pm
একটি কাজ হৃদরোগের ঝুঁকি কমিয়ে আনবে অর্ধেক!
০ দিন পূর্বে
4:41 pm
র‌্যাব সদস্যদের দরবার শরীফ লুটের মামলার সাক্ষ্যগ্রহণ পেছাল
০ দিন পূর্বে
4:33 pm
শিশুদের স্মার্টঘড়িতে ট্র্যাকিং থেকে হ্যাকিং ঝুঁকি!
০ দিন পূর্বে
4:30 pm
সোনালী ব্যাংকের ডিজিএমসহ পাঁচ কর্মকর্তা গ্রেফতার
০ দিন পূর্বে
4:23 pm
বিশ্ববাসীকে রোহিঙ্গাদের পাশে দাঁড়াতেই হবে : জর্ডানের রানি
বাঘ রক্ষায় তৎপর হওয়া চাই এখনই

ধারণার চেয়ে কয়েক গুণ কম বাঘ সুন্দরবনে থাকার তথ্য জানার পর বিপন্ন এই প্রজাতি রক্ষায় বাংলাদেশ সরকারকে এখনি পদক্ষেপ নেওয়ার তাগিদ দিয়েছেন একজন প্রাণীবিজ্ঞানী। পায়ের ছাপ পর্যবেক্ষণ করে (পাগ মার্ক পদ্ধতি) এতদিন বলা হচ্ছিল, সুন্দরবনে সাড়ে চারশ’র মতো রয়্যাল বেঙ্গল টাইগার রয়েছে। কিন্তু ক্যামেরা পদ্ধতিতে বাঘ শুমারির পর দেখা যায়, সুন্দরবনের বাংলাদেশ অংশে বাঘের সংখ্যা একশ’র মতো। ২০১৩ সাল থেকে ক্যামেরা পদ্ধতিতে বাঘ শুমারির কাজ শুরু হয়ে গত এপ্রিলে তা শেষ হয়। ২৯ জুলাই আন্তর্জাতিক বাঘ দিবসের ঠিক আগে এই তথ্য প্রকাশ পেল। বন অধিদপ্তরের বন্যপ্রাণী অঞ্চলের বন সংরক্ষক তপন কুমার দে বিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকমকে বলেন, “ক্যাপচার ক্যামেরা পদ্ধতিতে সুন্দরবনের বাংলাদেশ-ভারতে ৮৩ থেকে ১৩০টি বাঘের সন্ধান পাওয়া গেছে; এটার গড় হিসেবে বাংলাদেশ অংশে প্রকৃত বাঘের সংখ্যা ১০৬টি হতে পারে।” “সনাতন পদ্ধতিতে পায়ের ছাপ দিয়ে বাঘ শুমারির চেয়ে এবার চার ভাগের একভাগে নেমে এল বাঘের সংখ্যা। এরপরও বৈজ্ঞানিক পন্থা হওয়ায় ক্যামেরা পদ্ধতির সংখ্যাই সঠিক,” মন্তব্য করে তিনি বলেন, শিগগির আনুষ্ঠানিকভাবে জরিপের ফল প্রকাশ করা হবে। এ বিষয়ে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রাণী বিদ্যা বিভাগের চেয়ারম্যান অধ্যাপক মো. আনোয়ারুল ইসলাম বিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকমকে বলেন, “কোনো মেথডই চূড়ান্ত বা সঠিক বলাটা আমাদের জন্য বড় চ্যালেঞ্জ। “বন বিভাগ আগে ৪৪০টি বলেছে, এখন ১০৬টি বলছে; সরকারিভাবে যা বলা হবে, তা আমাদের মানতে হবে। তবে বাঘ যে কমে যাচ্ছে এটাই সত্যি। চোরকারবারি আর খাবার সংকটে বাঘ কমছে।” বাঘের সংখ্যা নিয়ে ‘আত্মতৃপ্তিতে’ না থেকে এখনই বাঘ রক্ষায় কঠোর পদক্ষেপ নেওয়ার দাবি জানান ওয়াইল্ড লাইফ ট্রাস্টের এ প্রধান নির্বাহী। অধ্যাপক আনোয়ার বলেন, “কমে যাওয়ার এ ট্রেন্ডে সবাইকে নিয়ে একযোগে কাজ করতে হবে বাঘ রক্ষায়। এ প্রাণীটির অবস্থা নিবিড় পর্যবেক্ষণে (ইনটেনসিভ কেয়ার ইউনিটে) রয়েছে বিবেচনায় নিয়ে কাজ করতে হবে।” বাঘের সংখ্যা কমে যাওয়ার বিদ্যমান প্রবণতার মধ্যে বিপন্ন এ প্রজাতিকে রক্ষায় এখনই সুন্দরবনে স্বাধীন ‘এন্টি পোচিং ইউনিট’ গঠনের দাবি জানান এই বন্যপ্রাণী বিশেষজ্ঞ। পুলিশ, সেনাবাহিনীসহ সব ধরনের প্রতিনিধির অংশগ্রহণে ‘স্বাধীন’ এই ইউনিট গঠনের সুপারিশ করেন তিনি। অধ্যাপক আনোয়ার বলেন, “বাঘ বাঁচলেই সুন্দরবন বাঁচবে।” ২০০৪ সালে জাতিসংঘ উন্নয়ন কর্মসূচি (ইউএনডিপি) ও ভারতের বিশেষজ্ঞদের সহায়তায় পায়ের ছাপের ওপর ভিত্তি করে পরিচালিত জরিপে ছয় হাজার বর্গকিলোমিটারের সুন্দরবনে ৪৪০টি রয়েল বেঙ্গল টাইগার গণনা করা হয়। এর মধ্যে ১২১টি পুরুষ, ২৯৮টি বাঘিনী এবং ২১টি শিশু বাঘ। ২০০৬ সালে ক্যামেরা ট্র্যাপিং ও আপেক্ষিক সংখ্যা পদ্ধতি অনুসরণ করে সুন্দরবনে এক শুমারিতে ২০০ বাঘ পাওয়া যায়। অধ্যাপক আনোয়ার বলেন, “কমে যাওয়া মেনে নিতে কষ্ট হচ্ছে। কিন্তু ভাবতে হবে এরপর কী হবে! বাঘের সংখ্যা কমে যাচ্ছে, খাবার কমে যাচ্ছে, চোরাগুপ্তা- এসবই বড় হুমকি বাঘের জন্য।”